ইবিতে ভর্তি পরীক্ষা শুরু ৪ নভেম্বর, চবিতে ২৬ অক্টোবর


বাংলাদেশ
Published: 2019-07-28 19:05:35 BdST | Updated: 2019-10-18 05:19:50 BdST

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের প্রথম বর্ষ স্নাতক (সম্মান) শ্রেণির ভর্তি পরীক্ষা আগামী ২৬ থেকে ৩১ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হবে।

রোববার বিকেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের সভাকক্ষে অনুষ্ঠিত ভর্তি পরীক্ষা সংক্রান্ত এক সভায় এ সিদ্ধান্ত হয়েছে।

বিষয়টি  নিশ্চিত করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ডেপুটি রেজিস্ট্রার (একাডেমিক শাখা) এসএম আকবর হোছাইন।

ইবি

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষ স্নাতক প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষা আগামী ৪ নভেম্বর শুরু হয়ে চলবে ৮ নভেম্বর পর্যন্ত। ভর্তি পরীক্ষার জন্য আবেদন শুরু হবে ২ সেপ্টেম্বর। চলবে ১ অক্টোবর পর্যন্ত।

রোববার বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ভর্তি পরীক্ষা কমিটির সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) এস এম আব্দুল লতিফ।

তিনি বলেন, রোববার সকাল ১০টায় উপাচার্য অধ্যাপক ড. হারুন-উর রশিদ আসকারীর সভাপতিত্বে প্রশাসন ভবনের সভাকক্ষে কেন্দ্রীয় ভর্তি পরীক্ষা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষা আগামী ৪ থেকে ৮ নভেম্বরের মধ্যে নেয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

সভায় ভর্তি পরীক্ষার আবেদনের তারিখসহ প্রবেশপত্র উত্তোলন ও পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশের তারিখ নির্ধারণের বিষয়েও সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে। এর মধ্যে ভর্তি পরীক্ষার জন্য আবেদন ২ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হয়ে ১ অক্টোবর পর্যন্ত চলবে। প্রবেশপত্র উত্তোলন করা যাবে ১৬ অক্টোবর থেকে ২ নভেম্বর পর্যন্ত।

এছাড়া ভর্তি পরীক্ষার পর সংশ্লিষ্ট সকল ইউনিটকে ১৫ নভেম্বরের মধ্যে ফলাফল প্রকাশ করতে হবে বলেও সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

গত বছরের মতো এবারও ৪টি ইউনিটে পরীক্ষা সম্পন্ন হবে। ‘এ’ ইউনিটের অধীনে ধর্মতত্ত্ব অনুষদের পরীক্ষা; ‘বি’ ইউনিটের অধীন কলা, সামাজিক বিজ্ঞান ও আইন অনুষদের ভর্তি পরীক্ষা; ‘সি’ ইউনিটের অধীনে ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদের পরীক্ষা এবং ‘ডি’ ইউনিটের অধীনে বিজ্ঞান অনুষদ, প্রকৌশল ও প্রযুক্তি অনুষদ এবং জীববিজ্ঞান অনুষদের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

এবারও লিখিত ও এমসিকিউ পদ্ধতিতে ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। ১২০ নম্বরের পরীক্ষায় ২০ নম্বর লিখিত (এক বাক্যে উত্তর) ৬০ নম্বরের এমসিকিউ এবং এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার ফলাফলের ওপর ৪০ নম্বর (২০+২০) থাকবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ও কেন্দ্রীয় ভর্তি পরীক্ষা কমিটির সভাপতি অধ্যাপক হারুন-উর রশিদ আসকারী বলেন, ‘এবারও ব্ল্যান্ডেড পদ্ধতিতে (লিখিত এবং এমসিকিউ) ভর্তি পরীক্ষা গ্রহণ করা হবে। নির্ধারিত আসনে সর্বোচ্চ মেধাবীদের ভর্তি করাতে সতর্ক অবস্থানে থেকে সব ব্যবস্থাই নেয়া হবে।’