১০৫ পরিবারের পাশে "আমার দায়িত্বে থাকুক একটি পরিবার" প্ল্যাটফর্ম


ঢাবি টাইমস
Published: 2020-05-13 17:02:38 BdST | Updated: 2020-06-04 13:34:09 BdST

১০৫টি পরিবারের পাশে নৈতিকভাবে পাশে দাঁড়িয়েছেন দেশের সজ্জন কিছু ব্যক্তি। করোনার এই অন্ধকার সময়ে পরিবারগুলোকে আশার আলো দেখিয়েছে "আমার দায়িত্বে থাকুক একটি পরিবার" নামের একটি অনলাইন প্ল্যাটফর্ম।

বর্তমানে পুরো বিশ্ব করোনা থাবায় বিপর্যস্ত। বাংলাদেশও ব্যতিক্রম নয়। বর্তমানে আমাদের দেশেই অসংখ্য জানা-অজানা দরিদ্র, নিম্ন মধ্যম আয়ের পরিবার সীমাহীন দুঃখ-দারিদ্রে আক্রান্ত। কোনো পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম মানুষটি কাজ না পেয়ে দিশে হারাচ্ছেন, কোনো পরিবারের আগামী কিছুদিনের আয়ের উৎস কি হবে, তা অজানা।

নিম্ন আয়ের অভাবী এই মানুষগুলো ত্রাণ হিসেবে যৎসামান্য নির্ধারিত যে পরিমাণ খাদ্য পাচ্ছেন, তা দিয়ে ক'দিন চলতে পারে। এমনও অঞ্চল রয়েছে যেখানে ত্রাণ পৌঁছয়নি এখনো। মানবেতরভাবে একবেলা খেয়ে-না খেয়ে দিন কাটানো পরিবারগুলোরজন্য ভবিষ্যৎ কয়েকমাস কি তবে এভাবেই যাবে?

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইইই বিভাগের কিছু তরুণ একটু ভিন্নভাবে চিন্তা করলেন। কেমন হবে যদি এই পরিবারগুলোর জন্য করোনা থেকে মুক্তি পর্যন্ত স্থায়ী, নির্ভরযোগ্য কোনো সমাধান দেয়া যায়? সেই ভাবনা থেকেই "আমার দায়িত্বে থাকুক একটি পরিবার" ফেসবুক পেজটির সূচনা।

না, তারা সরাসরি সাহায্যপ্রার্থীর কাছে ত্রাণ দিয়ে আসেন না, বরং যিনি সাহায্য করতে ইচ্ছুক, তাঁর সাথে পরিচয় করিয়ে দেন অভাবী পরিবারের। তিনি যোগাযোগ করে, সরাসরি খাবার কিনে সাহায্য করতে পারেন, কিংবা টাকা পাঠিয়ে দিতে পারেন। এর ফলে স্বচ্ছতা ব্যাপারটি নিয়ে প্রশ্ন তোলার অবকাশ নেই একদমই। প্রতি সপ্তাহে গড়ে পাঁচশ' টাকার একটি বন্দোবস্ত হলেই অভাবী একটি পরিবার কষ্ট করে হলেও বেঁচে থাকতে পারবে। অন্তত অনিশ্চিতভাবে দিন কাটাতে হবে না।

অনেকেই এসব অভাবী পরিবারের সন্ধান দিচ্ছেন, অনেকে পরিবারগুলোর দুরবস্থায় স্বেচ্ছায় আর্থিকভাবে পাশে দাঁড়িয়েছেন। নিম্ন আয়ের এই সাহায্যপ্রত্যাশী জনগোষ্ঠীর সাথে সাহায্য-দাতাগোষ্ঠীর সেতুবন্ধন হিসেবে কাজ করেছে এই ফেসবুক পেজটি।

অনিশ্চিত এই সময়ে, শতাধিক পরিবার পেয়েছে নিশ্চিন্ত নির্ভার অবলম্বন।
লিংক : https://www.facebook.com/projectfeedafamily