পাকিস্তানি ছেলেকে বিয়ে করলেন বাংলাদেশি ছাত্রী


জয়পুরহাট
Published: 2020-05-22 17:16:58 BdST | Updated: 2020-10-26 00:40:18 BdST

করোনাভাইরাস সারাবিশ্বকে ওলটপালট করে দিলেও বাঁধা হয়ে দাঁড়াতে পারেনি ভালোবাসার কাছে। আপাতত একসঙ্গে হতে না পারলেও ভিডিও কনফারেন্সে প্রেমের শুভপরিণতি বিয়ের বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছেন বাংলাদেশি সাবরিনা ও পাকিস্তানের উমের।

বৃহস্পতিবার রাতে বিয়ে হয় দুই দেশের দুই তরুণ-তরুণীর। কনে মুরসালিন সাবরিনা জয়পুরহাট পৌর শহরের কাশিয়াবাড়ি এলাকার ব্যাংক কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমানের মেয়ে। আর বর পাকিস্তানের পাঞ্জাব প্রদেশের মুলতান শাহরুখনে আলম কলোনীর ফল ব্যবসায়ী বিলাল আহম্মেদের ছেলে মুহাম্মদ উমের।

কনের পরিবার জানিয়েছে, সাবরিনা ‘ইউনিভার্সিটি অফ দ্য পিপল’ নামে আমেরিকান একটি অনলাইন বিশ্ববিদ্যালয়ে কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে লেখাপড়া করছেন। বিশ্ববিদ্যালয়টিতে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীদের নিজস্ব ওয়েবসাইটের মাধ্যমে পাকিস্তানের মুহাম্মদ উমেরের সঙ্গে পরিচয় ঘটে সাবরিনার।

পরিচয় থেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গড়ে ওঠে তাদের প্রেমের সম্পর্ক। বিষয়টি দুই পরিবারের অভিভাবকদের ২০১৯ সালে জানােনা হয়। অভিভাবকরা তাদের বিয়ের সিদ্ধান্ত নেন। বিয়ের দিন তারিখও ঠিক হয়েছিল। উমেরসহ তার পরিবারের সদস্যরা বাংলাদেশে আসার জন্য ২০২০ সালের ৭ ফেব্রুয়ারি ভিসার আবেদন করেন। ভিসা নিয়ে মার্চ মাসেই উমেরের পরিবার বাংলাদেশে এসে বিয়ে সম্পন্ন করার কথা ছিল।

কিন্তু বাদ সাধে করোনাভাইরাস। করোনা প্রাদুর্ভাবের কারণে স্থগিত হয়ে যায় তাদের বিয়ে। অবশেষে সাবরিনার বাবার সঙ্গে যোগাযোগ করে অনলাইনে বিয়ে সম্পন্নের প্রস্তাব করেন উমেরের বাবা বিলাল। বিষয়টি মেনে নিয়ে উভয়পরিবার বৃহস্পতিবার রাতে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বিবাহ সম্পন্ন করে।

এ উপলক্ষে সাবরিনার বাড়িতে স্বজন ও প্রতিবেশিদের নিয়ে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে বিয়ের আয়োজন হয়। তাদের বিয়ে পড়ান মাওলানা মোজাফফর হোসেন। সাবরিনার বাবা মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, মেয়ের সঙ্গে পাকিস্তানি ছেলের প্রেমের সম্পর্ক প্রথমে মেনে নিতে চাইনি। পরে তাদের খোঁজখবর নিয়ে ভাল লেগেছে। তাদের পরিবার খুবই ভাল। তাই মেয়ের বিয়ে দিতে সম্মত হই। তিনি বলেন, করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে জামাই ও তার পরিবার এসে আনুষ্ঠানিকতা সম্পূর্ণ করে মেয়েকে নিয়ে যাবে।