জাবির হল থেকে নবজাতক উদ্ধারের ঘটনায় তদন্ত কমিটি


টাইমস অনলাইনঃ
Published: 2019-03-18 00:55:29 BdST | Updated: 2019-06-19 19:28:13 BdST

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেসা মুজিব হলের একটি কক্ষের তালাবদ্ধ ট্রাঙ্ক থেকে নবজাতক উদ্ধারের ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন করেছে হল প্রশাসন। চার সদস্যবিশিষ্ট ওই কমিটিকে ১০ কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।

রোববার (১৭ মার্চ) হলের প্রভোস্ট অধ্যাপক মোহা. মুজিবর রহমান এসব তথ্য জানান। তিনি জানান, হলটির আবাসিক শিক্ষক রাবেয়া খাতুন তানিয়াকে তদন্ত কমিটির প্রধান করা হয়েছে। কমিটির সদস্যরা হলেন- হলের আবাসিক শিক্ষক ফেরদৌস রহমান, সোলনারা আকতার ও তাহিরা ফারজানা।

এর আগে, গতকাল শনিবার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের বেগম ফজিলাতুন্নেসা মুজিব হলের একটি কক্ষের তালাবদ্ধ ট্রাঙ্ক থেকে নবজাতক উদ্ধারের ঘটনা ঘটে। তবে রাত ১০টার দিকে সাভারের এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সেই নবজাতকের মৃত্যু হয়।

হল প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, শনিবার দুপুর আড়াইটার দিকে ওই ছাত্রী নিজের কক্ষে নবজাতক প্রসব করে ট্রাঙ্কে লুকিয়ে রাখেন। তার শারীরিক অবস্থা দেখে হল প্রশাসনকে জানান রুমমেটরা। পরে তাকে হাসপাতালে নেওয়া হয়। এরপর ওই কক্ষ থেকে নবজাতকের কান্নার আওয়াজ শুনতে পেয়ে হল প্রশাসন ও ছাত্রীরা খোঁজাখুঁজি করেন। একপর্যায়ে ট্রাঙ্কের তালা ভেঙে নবজাতক উদ্ধার করা হয়। পরে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে শিশুটিকে এনাম মেডিকেলে পাঠালে সেখানে তার মৃত্যু হয়।

প্রভোস্ট অধ্যাপক মোহা. মুজিবর রহমান বলেন, ‘বাচ্চা যেহেতু চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছে, এজন্য আমরা তদন্ত সাপেক্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রচলিত নিয়মে ব্যবস্থা নেবো। আর আমি যতটুকু জানি নবজাতকের মা এখন আশঙ্কামুক্ত।’

ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর আ স ম ফিরোজ উল হাসান বলেন, ‘হলের ভেতর নবজাতকের জন্মদানের পর ওই ছাত্রী তার বাচ্চা লুকিয়ে রেখেছে। এটা একটা অপরাধ। হল প্রশাসন একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। এখন তদন্ত সাপেক্ষে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ব্যবস্থা নেবে।’

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।