পেঁয়াজ আমদানিতে ৫ শতাংশ শুল্ক প্রত্যাহার


টাইমস প্রতিবেদক
Published: 2020-09-20 18:59:35 BdST | Updated: 2020-10-21 21:53:10 BdST

পেঁয়াজ আমদানিতে ৫ শতাংশ শুল্ক প্রত্যাহার করেছে সরকার। ২০২১ সালের ৩১ মার্চ পর্যন্ত এ সিদ্ধান্ত কার্যকর থাকবে।

রোববার (২০ সেপ্টেম্বর) অর্থ মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা গাজী তৌহিদুল ইসলাম এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানান।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, পেঁয়াজ আংশিক আমদানি নির্ভর একটি নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য। নিকট অতীতে পেঁয়াজের বাজার অস্থিতিশীল হয়েছে এবং ২০১৯-২০ অর্থবছরে এই সংকটটি কঠিন আকার ধারণ করে। পেঁয়াজের মূল্য সাম্প্রতিক সময়ে অনেকটা বৃদ্ধি পেয়েছে। এছাড়া, সম্প্রতি ভারত থেকে পেঁয়াজ রপ্তানি নিষিদ্ধের কারণে বাজারে পেঁয়াজের মূল্য ঊর্ধ্বমুখী। পর্যালোচনায় দেখা যায় যে, দেশীয় পেঁয়াজ চাষিদের ন্যায্য মূল্য প্রাপ্তি নিশ্চিতকরণ, পেঁয়াজ চাষে উৎসাহ প্রদান এবং আমদানির উপর নির্ভরশীলতা হ্রাসের লক্ষ্যে পেঁয়াজ আমদানিতে চলতি ২০২০-২১ অর্থবছরে পেঁয়াজ আমদানিতে ৫ শতাংশ আমদানি শুল্ক আরোপ করা হয়। বর্তমানে সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় পেঁয়াজের অনুৎপাদনকালীন সময় (Lean Period) হিসেবে পরিচিত মার্চ, ২০২১ পর্যন্ত সময়ে পেঁয়াজের উপর আরোপিত ৫ শতাংশ আমদানি শুল্ক প্রত্যাহারের করা হয়েছে।

গত সপ্তাহে ভারত হঠাৎ করে পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধের সিদ্ধান্ত নিলে বাংলাদেশে পেঁয়াজের দাম বেড়ে প্রায় দ্বিগুণ হয়ে যায়। এরপর পেঁয়াজের দাম নিয়ন্ত্রণে আনতে নানা উদ্যোগ নেয় সরকার।

গত ৭ সেপ্টেম্বর পেঁয়াজ আমদানির ওপর আরোপিত ৫ শতাংশ শুল্ক প্রত্যাহারের অনুরোধ জানিয়ে এনবিআরকে চিঠি দেয় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়।

সেই চিঠিতে বলা হয়, পেঁয়াজ আংশিক আমদানিনির্ভর একটি নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য। নিকট-অতীতে এই পণ্যের বাজার বেশ কয়েকবার অস্থিতিশীল হয়েছে। গত ২০১৯-২০ অর্থবছরে এই সংকট মারাত্মক আকার ধারণ করেছিল। বর্তমান বাজার পরিস্থিতি পর্যালোচনায় দেখা যায়, পণ্যটির মূল্য সম্প্রতি অনেকটা বৃদ্ধি পেয়েছে। মূলত আমদানিমূল্য বৃদ্ধি পাওয়া এর একটি অন্যতম কারণ।

৫ শতাংশ শুল্ক প্রত্যাহারের ফলে আমদানিকারকদের সুবিধা হবে এবং তারা পেঁয়াজ আমদানিতে উৎসাহী হবে বলে জানিয়েছে বাণিজ্য এবং অর্থ মন্ত্রণালয়।