বিশ্ববিদ্যালয়ে পুলিশ প্রহরায় ক্লাস নিচ্ছেন এক জার্মান অধ্যাপক


Dhaka
Published: 2019-11-22 04:55:57 BdST | Updated: 2019-12-05 20:42:55 BdST

জার্মানির হামবুর্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন অধ্যাপক কয়েক সপ্তাহ ধরে পুলিশ প্রহরায় লেকচার হলে ক্লাস নিচ্ছেন। ম্যাক্রো ইকোনমিকস বা সামষ্টিক অর্থনীতির এই অধ্যাপকের নাম বের্নাড লুকে। শিক্ষকতার পাশাপাশি তিনি একজন দক্ষিণপন্থী রাজনীতিক।

লুকে ২০১৪ সালে গঠিত জার্মান পার্লামেন্টের দক্ষিণপন্থী মূল বিরোধী দল অলটারনেটিভ ফর জার্মানির সহপ্রতিষ্ঠাতা। তিনি দলটির মুখপাত্র এবং ইউরোপীয় পার্লামেন্টে রক্ষণশীল দলটির সাংসদ ছিলেন।

হামবুর্গ বিশ্ববিদ্যালয়ে গত ১৬ অক্টোবর বের্নাড লুকের ক্লাস চলাকালীন প্রায় ১৫০ জন বিক্ষোভকারী লেকচার হলে প্রবেশ করে ওই ক্লাস পণ্ড করে দেন। বিক্ষোভকারীরা তাঁকে গালিগালাজ করেন। এরপর গত ২৩ অক্টোবর বিক্ষোভকারীরা একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটান। এর এক দিন পর ২৪ অক্টোবর লুকের ক্লাসে বোমা হামলার হুমকি আসে। এরপর থেকে হামবুর্গ বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ তাঁর ক্লাসগুলোতে পুলিশ প্রহরার ব্যবস্থা করেছে। লেকচার হলে প্রবেশের আগে ছাত্রছাত্রীদের ব্যাগ তল্লাশি করা হচ্ছে।

গত অক্টোবরে পরপর দুবার বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো স্থানে এই ধরনের ঘটনা ঘটায় জার্মানিতে মতপ্রকাশ ও বাক্স্বাধীনতা নিয়ে আলোচনা হচ্ছে। এ ছাড়া জার্মানির বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে রাজনৈতিক মতপ্রকাশের ক্ষেত্রে শিক্ষক ও ছাত্রদের কতটুকু ভূমিকা থাকা উচিত, সেই বিষয়টি নিয়েও কথা হচ্ছে।

উপাচার্য ডিতার ল্যাঞ্ছে তাঁর বিশ্ববিদ্যালয়ে এই ধরনের অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা কীভাবে ঠেকানো যায়, তা নিয়ে বন্দরনগরী হামবুর্গের গবেষণা ও বিজ্ঞানবিষয়ক সিনেটর ক্যাটরিনা ফেগেব্যাঙ্কসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভাগীয় প্রধানদের নিয়ে একটি কমিটি গঠন করেছেন। এই কমিটি দক্ষিণপন্থী অধ্যাপক বের্নাড লুকের বিষয় ছাড়াও কীভাবে এই ধরনের পরিস্থিতি সামাল দেওয়া যায়, তা নিয়ে সিদ্ধান্ত নেবে।

গত সোমবার হামবুর্গে অনুষ্ঠিত জার্মানির বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ভাইস চ্যান্সেলর সম্মেলনে জার্মানির প্রেসিডেন্ট ফ্রাঙ্ক ভাল্টার স্টাইনমায়ার তাঁর বক্তব্যে লুকের সঙ্গে ঘটা এসব ঘটনার নিন্দা জানিয়েছেন।

২০১৫ সালে বের্নাড লুকে রক্ষণশীল অলটারনেটিভ ফর জার্মানি দল থেকে পদত্যাগ করে অগ্রগতি ও উত্থান বা আলফা নামের আরেকটি রক্ষণশীল দল গঠন করেন। পরে ইউরোপীয় পার্লামেন্ট নির্বাচনে তিনি পরাজিত হন।

হামবুর্গ বিশ্ববিদ্যালয়ে অর্থনীতিতে অধ্যয়ন করতে আসা বের্নাড লুকের ছাত্রদের একটি অংশ জানিয়েছেন, শিক্ষকের রাজনৈতিক দর্শন নিয়ে তাঁদের কোনো মাথাব্যথা নেই। তবে অধিকাংশ ছাত্রছাত্রী তাঁদের শিক্ষকের রাজনৈতিক দর্শনকে প্রাধান্য দিয়ে বলেছেন, রক্ষণশীল মতাদর্শে বিশ্বাসী শিক্ষকের কাছে তাঁরা শিক্ষা নিতে অনাগ্রহী।