সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষার সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার হোক


ঢাবি টাইমস
Published: 2020-01-24 20:23:35 BdST | Updated: 2020-02-17 16:05:05 BdST

গতকাল(২৩-০১-২০২০)UGC এর সভায় সিদ্ধান্ত হয় আগামী শিক্ষাবর্ষ(২০২০-২১) থেকে দেশের সব পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। তারা ভাবছে অভিভাকদের খরচ কমবে, ভর্তি ফরম বিক্রির ব্যবসা কমবে এজন্যই মূলত সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষার সিদ্ধান্ত! কিন্তু তারা এটা বুঝতে পারছে না সব শিক্ষার্থীদের চাহিদা মেটানো কিংবা সব পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোও একই সাথে সমান মর্যাদা বা শিক্ষার সুযোগের পরিবেশ এখনো সৃষ্টি করতে পারেনি উদাহরন স্বরুপ(নিজের অভিজ্ঞতা থেকে)জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় & ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশ্ন প্যাটার্নে অনেক পার্থক্য।

একজন শিক্ষার্থী কে ঢাবি তে ভর্তির জন্য যেরকম পরিশ্রম বা প্রস্তুতি নিতে হয়,তার থেকে অনেক কম প্রস্তুতি নিয়েও কেউ জাহাঙ্গীরনগর ভর্তি হতে পারে কিংবা অনেক বেশি প্রস্তুতি থাকা সত্বেও ঐখানে চান্স পাবে এটা বলতে পারবে না।কিন্তু ঢাবির প্রশ্ন প্যাটার্ন সাজানোই হয় যে যত বেশি প্রস্তুতি নিবে চান্স পাওয়ার সম্ভাবনা তার তত বেশি থাকবে।সুতরাং একই প্যাটার্নে প্রশ্ন করতে গেলে গুনগত মান নিঃসন্দেহে কমবে,মেধাবি যাচাই ও তাদের পছন্দ অনুযায়ী বিশ্ববিদ্যালয় বাছাইয়ের সুযোগ বাধাগ্রস্থ হবে।কোন বিশ্ববিদ্যালয় কে ছোট করা বিষয়টা এমন না।তাছাড়া শিক্ষার্থীদের ভর্তির ব্যাপারে প্রতিটা বিশ্ববিদ্যালয়েরই নিজস্ব স্বকীয়তা রয়েছে যা একিভূত করার উপযুক্ত সময় এখনো আসে নি।মৌলিক চাহিদার(শিক্ষা)উপযুক্ত ব্যবস্থা ও সুষ্ঠু বন্টণ না করে UGC এক প্রকার অন্ধকার গলিতেই ছুঁটছে।

সুতরাং দেশের ৪৬ টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫৫ হাজার শিক্ষার্থী বাছাইয়ের সঠিক সময় এখনো আসে নি বলেই আমরা মনে করছি।

বুয়েট সহ আরো যে চারটি বিশ্ববিদ্যালয় তাদের এ সিদ্ধান্ত পুনরায় ভেবে দেখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে তা মূলত বর্তমানে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়া সচেতন শিক্ষার্থীদের মতামতেরই বহি:প্রকাশ বলে মনে করছি এবং এজন্য তারা ধন্যবাদ পেতেই পারে।

সিদ্ধান্তে রাজি না হলে UGC তাদের বাদ দিয়েই যদি সমন্বিত পরীক্ষা নেওয়ার উদ্যোগ গ্রহন করে তাহলে তা হবে দেশের সার্বিক শিক্ষা ব্যবস্থার জন্য হুমকি স্বরুপ।