সীমিত পরিসরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার পরিকল্পনা রয়েছে: শিক্ষামন্ত্রী


Dhaka
Published: 2020-10-29 12:59:21 BdST | Updated: 2020-11-24 13:00:50 BdST

মহামারী করোনাভাইরাস সংক্রমণ পরিস্থিতি বিবেচনায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি আগামি ১৪ নভেম্বর পযন্ত বাড়িয়েছে সরকার। তবে দুই সপ্তাহ পর সীমিত পরিসরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা যায় কিনা সেটি বিবেচনায় রয়েছে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি।

বৃহস্পতিবার (২৯ অক্টোবর) দুপুরে অনলাইনে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান তিনি।

সীমিত পরিসরে ক্লাস শুরুর বিষয়ে তিনি বলেন, সীমিত পরিসরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার কথা বলছি এই শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীদের জন্য। এ বছর যাদের এইচএসসি পরীক্ষার্থী ছিলো তাদের সব প্রস্তুতি ছিলো। কিন্তু আগমী বছর যারা পরীক্ষা দেবে তাদের তো পড়াশুনায় ব্যাঘাত হয়েছে। তাদের জন্যই সীমিত পরিসরে হলেও, নির্ধারিত পরীক্ষার আগে যদি সময় দেয়া যায় তাহলে হয়ত তারা সিলেবাস শেষ করতে পারবে।

তিনি বলেন, সীমিত পরিসরে তাদের ক্লাসরুমে নিয়ে এসে তাদের যেসব সমস্যা আছে সেটি কিভাবে সমাধান করা যায় সেটি দেখছি। অনেকে বলছে স্কুলের আসার বিষয়টাই হয়ত ভুলেই যাচ্ছে তারা। তবে সব কিছুই নির্ভির করবে করোনা পরিস্থিতির উপর।

সামনের ববছর এসএসসি পরীক্ষা পেছানো হতে পারে কিনা সে বিষয় তিনি বলেন, শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যঝুঁকি আছে কিনা সেটি দেখব। সেটি পরিস্থিতির উপর নির্ভর করবে। আমরা এখনই বলতে পারছি না পরীক্ষা পেছাবে কিনা, সেটি সময় হলেই আমরা সিদ্ধান্ত নেবো।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষার বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা হয়ত নেয়া যেবে। এইচএসসির মতো তাদের পরীক্ষার্থীর সংখ্যা এতো বেশি নয়। তাদের পরীক্ষা হয়ত আস্তে আস্তে নিয়ে নিতে পারব। শিক্ষার্থীরা যেন এখন থেকেই প্রস্তুতি নিতে থাকে। দুইমাস পর পরীক্ষা নিলে যেন না বলে প্রস্তুতি নিতে পারিনি। তাদের এখন প্রস্তুতি নিতে হবে। আমরা চেস্টা করব তাদের পরীক্ষা নিয়ে নিতে। জাতীয় বিশ্শ্ববিদ্যালয় ও কারিগরি কর্তৃপক্ষের সঙ্গে এ বিষয়ে কথা হয়েছে। আমরা চেস্টা করব পরীক্ষা নিয়ে নিতে।

শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল বলেন, করোনার শুরুর পর থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে দীর্ঘ ছুটি চলছে। তবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যাওয়ার অনুশীলন করতে হবে। যেহেতু একটি প্রতিষ্ঠানে পরীক্ষাথী সংখ্যা সুনির্দিস্ট। পরীক্ষার মাধ্যমেই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে আসার অনুশীলন শুরু করতে পারারা। বিদ্যালয়গুলোতে যাতে এখন থেকেই শুরু হয় সেটি বিবেচনার প্রয়োজন আছে।

এসময় সংবাদ সম্মেলনে অনলাইনে সংযুক্ত ছিলেন মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব মোঃ মাহবুব হোসেন, কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আমিনুল ইসলাম খান।

উল্লেখ্য করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব শুরুর পর গত ১৭ মার্চ থেকে দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। কয়েক দফা বাড়িয়ে আগামী ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি রয়েছে।

করোনা পরিস্থিতির কারণে প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষা এবং জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) ও জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট (জেডিসি) পরীক্ষা বাতিল করা হয়েছে। বাতিল হয়েছে উচ্চমাধ্যমিক সার্টিফিকেট (এইচএসসি) পরীক্ষাও, এর পরিবর্তে জেএসসি ও এসএসসি পরীক্ষার ফলাফলের গড়ের ওপর ভিত্তি করে শিক্ষার্থীদের মূল্যায়ন করা হবে।