অনলাইনে ভর্তি ও পাঠদান চালাতে পারবে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়


Dhaka
Published: 2020-05-07 17:53:25 BdST | Updated: 2020-05-26 00:17:00 BdST

প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের কারণে উদ্ভূত পরিস্থিতিতে শিক্ষা কার্যক্রম অব্যাহত রাখতে দেশের বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে ২৩ দফা নির্দেশনা দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জু্রি কমিশন (ইউজিসি)। বৃহস্পতিবার ইউজিসির বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালক ড. মো. ফখরুল ইসলাম স্বাক্ষরিত এক আদেশে এসব নির্দেশনা জারি করা হয়েছে।

ই-মেইলের মাধ্যমে এ নির্দেশনা পাঠানো হয়েছে। পাশাপাশি ইউজিসির ওয়েবসাইটেও এটি প্রকাশ করা হয়েছে।

এই গাইডলাইন অনুযায়ী, প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়সমূহ চলতি সেমিস্টারের অসমাপ্ত কার্যক্রম (পাঠদান, পরীক্ষা ও মূল্যায়ন) অনলাইনে সম্পাদন করতে পারবে। পাশাপাশি আগামী সেমিস্টারেও শিক্ষার্থী ভর্তি করতে পারবে। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে চলমান সেমিস্টার সম্পন্ন করার বিকল্প দুটি প্রস্তাব, অনলাইনে ক্লাস-পরীক্ষা চালানো, নতুন সেমিস্টারে শিক্ষার্থী ভর্তি এবং ১৪টি সাধারণ নির্দেশনাসহ মোট ২৩টি নির্দেশনা জারি করেছে ইউজিসি।

নির্দেশনার মধ্যে উল্লেখ্যযোগ্য হিসেবে দেখা গেছে, যেসব বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় চলমান সেমিস্টারের শিক্ষা কার্যক্রম অনলাইনে সন্তোষজনকভাবে পরিচালনা করছে, সেসব বিশ্ববিদ্যালয়ে চলতি সেমিস্টারেও অনলাইনে ক্লাস চলমান থাকবে। তবে ল্যাবরেটরিভিত্তিক কোর্সের ব্যবহারিক ক্লাস পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার পর সম্পন্ন করতে হবে।

পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার পর বিশ্ববিদ্যালয় সকল পর্যায়ের পরীক্ষা ও মূল্যায়ন চলমান নিয়ম অনুযায়ী চলবে।

কমিশনের নির্দেশনা অনুযায়ী আগের মতো ৮টি সেমিস্টারে কোর্সের অসমাপ্ত পাঠ্যসূচির উপর অনলাইনে ক্লাস চলবে।

নির্দেশনায় বলা হয়েছে, চলমান সেমিস্টারে তত্ত্বীয় কোর্সের বিভিন্ন বিষয়ে রেজিস্ট্রিকৃত শিক্ষার্থীদের অনলাইনের মাধ্যমে ঐ সকল বিষয়ের অসমাপ্ত পাঠ্যসূচী (যা ৩০ শতাংশের মত) সন্তোষজনকভাবে সম্পন্ন হয়ে গেলে এবং অনলাইনের কার্যক্রম শুরুর আগে চলমান সেমিস্টারের বিভিন্ন বিষয়ে ইতােপূর্বে ক্লাস, উপস্থিতি, পারফরমেন্স, ক্লাস টেস্ট, মিড-টার্ম পরীক্ষার ওপর ভিত্তি করে যা মূল্যায়ন করা হয়েছে তার নম্বর এবং অনলাইনের পঠিত অংশের উপর এ্যাসাইনমেন্ট, কেইস স্টাডি, ভাইভা (ভিডিও ডিভাইস অন অবস্থায়), ভার্চুয়াল প্রেজেন্টেশন নিয়ে যথাযথ স্বচ্ছতা ও মান নিশ্চিত করে মূল্যায়ন সম্পন্ন করে ফলাফল প্রকাশ করা যাবে। মূল্যায়নের জন্য প্রয়োজন হলে পূর্বের সেমিস্টারের ফলাফল বিবেচনায় আনা যেতে পারে। সকল বিষয়ের ফলাফল বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কাউন্সিলের সুপারিশের ভিত্তিতে প্রকাশ করতে হবে।

উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনির সভাপতিত্বে এক ভার্চুয়াল বৈঠকে গাইডলাইন প্রণয়ন বিষয়ে আলোচনা হয়। সভায় বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন (ইউজিসি), পাবলিক ও প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিনিধিরা অংশগ্রহণ করেন।

গত ২৩ মার্চ অনলাইনে শিক্ষা কার্যক্রম চালাতে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে উৎসাহিত করে ইউজিসি। গত ২১ এপ্রিল সর্বশেষ পরিস্থিতি জানতে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে চিঠি দিয়ে তথ্য চায় সংস্থাটি। চিঠিতে অনলাইনে ক্লাস নেওয়া হচ্ছে কিনা, কতগুলো বিভাগে নেওয়া হচ্ছে এবং ক্লাসে শিক্ষার্থীর উপস্থিতির হার কত এসব বিষয় জানতে চায় ইউজিসি। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর পাঠানো প্রতিবেদন উল্লেখ করে ইউজিসি মন্ত্রণালয়কে জানায়, দেশের ৬৩টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় অনলাইনে ক্লাস নিচ্ছে। আর সাতটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় এতে অংশ নিচ্ছে।