৬ মাসে কী কী করলেন ডাকসু এজিএস সাদ্দাম


ঢাবি টাইমস
Published: 2019-09-06 01:02:46 BdST | Updated: 2019-09-22 08:13:14 BdST

দীর্ঘ ২৮ বছর পর ডাকসু নির্বাচনের মাধ্যমে নির্বাচিত প্রতিনিধিরা দায়িত্ব নেয়ার পর নানানভাবে শিক্ষার্থীদের সমস্যা সমাধান ও সহযোগিতায় কাজ করে যাচ্ছে ডাকসু ।

শিক্ষার্থীরা যে কোন সমস্যা নিয়ে সরাসরি দেখা করতে পারছেন ডাকসু এজিএস সাদ্দাম হোসেনের সাথে। তিনি সর্বাধিক ভোট পেয়ে ডাকসু নির্বাচনে এজিএস নির্বাচিত হয়েছিলেন। গত ছয় মাসে তিনি বিভিন্ন বিভাগে সরাসরি গিয়ে শিক্ষার্থীদের সমস্যা সমাধান করেছেন।

বিভিন্ন বিভাগের আভ্যন্তরীণ সমস্যা, বিভাগের উন্নয়ন ফি কমানোসহ বিভিন্ন সমস্যার কথা শিক্ষার্থীরা ডাকসুকে জানাতে পারছে এবং ডাকসুর অনেক নেতা শিক্ষার্থীদের এই অভিযোগগুলো গ্রহণ করছেন।

ডাকসুর সহ-সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসাইন বলছেন, নানা সীমাবদ্ধতার মধ্যেও শিক্ষার্থীদের স্বার্থে অনেক কাজ করতে সক্ষম হয়েছেন তারা।

কিছু বিভাগ ও হলের উন্নয়ন ফি প্রত্যাহার, দুই ছাত্রী হলসহ বিভিন্ন রুটে পরিবহন বৃদ্ধি, লাইব্রেরি খোলার সময়সীমা দুই ঘণ্টা বাড়ানো এবং হল সংসদগুলোকে কার্যকর করে সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ড পালনকে সাফল্য হিসাবে দেখান তিনি।

গণরুম সমস্যার সমাধানে উদ্যোগ না নেওয়া প্রসঙ্গে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম বলেন, “বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসন সঙ্কট তীব্র। গণরুম সঙ্কট মোকাবেলার জন্য নতুন হল নির্মাণের লক্ষ্যে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। এজন্য শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গেও কথা বলেছি আমরা।”

৩১শে আগস্ট গণভবনে গিয়ে সাদ্দাম প্রধানমন্ত্রীর কাছে সরাসরি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় একটি অত্যাধুনিক হল নির্মাণের দাবি জানান।

নতুন হল নির্মাণ ছাড়া গণরুম সমস্যার সমাধান সেভাবে সম্ভব নয় মন্তব্য করে তিনি বলেন, “এর বাইরে হল প্রশাসন ও হলের নির্বাচিত প্রতিনিধিদের মাধ্যমে সিট বন্টনের বিষয়ে উদ্যোগ নেওয়ার জন্য কাজ করা হচ্ছে ডাকসুর পক্ষ থেকে।”

একনজরে উল্লেখযোগ্য কার্যাবলী
#প্রধানমন্ত্রীর কাছে নতুন হল নির্মাণের দাবি
#কেন্দ্রীয় লাইব্রেরীর উন্নয়নের শিক্ষা মন্ত্রীর আশ্বাস
#লেদার ইঞ্জিনিয়ার ইনস্টিটিউটেস্ট ফি কমানো
#গণিত বিভাগের সাপ্লিমেন্টারি পরীক্ষার সুযোগ
# বিভিন্ন বিভাগে ফি কমানো

# কনভোকেশনের অংশ নিতে আবেদনের সময় বৃদ্ধি 

#সুইমিংপুলের সময়সীমা বৃদ্ধি

#ঢাবি ভর্তি পরীক্ষা পদ্ধতি পরিবর্তন

বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা বলছেন, শিক্ষার্থীদের যে প্রধান প্রধান সমস্যা রয়েছে তার সমাধান সরাসরি ডাকসুর পক্ষে করা সম্ভব নয়। তবে তারা প্রেশার ক্রিয়েটর শক্তি হিসেবে কাজ করতে পারেন। এসব সমস্যার সমাধান করতে হলে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকেই করতে হবে। ডাকসু শুধু সমস্যাগুলো ফাইন্ড আউট করে উপস্থাপন করার শক্তি রাখে।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।