অনলাইনে ক্লাসে যাচ্ছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়


Dhaka
Published: 2020-07-03 16:30:25 BdST | Updated: 2020-08-06 18:31:36 BdST

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়সেশনজট এড়াতে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে অনলাইনে ক্লাস নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে এই প্রক্রিয়া শুরু করার নির্দেশনা দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

গতকাল বৃহস্পতিবার বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য মীজানুর রহমানের সভাপতিত্বে এক অনলাইন সভায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। পরে বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ দপ্তরের পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের দাপ্তরিক ওয়েবসাইটে একটি বিস্তারিত বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বর্তমান সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে সর্বসম্মতিক্রমে শিক্ষার্থীদের অনলাইনে ক্লাস নেওয়ার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের সব বিভাগ ও ইনস্টিটিউটে অনলাইন ক্লাস শুরু করার বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ হওয়ার পূর্বে যে সেমিস্টার চলমান ছিল, সে সেমিস্টারের অসম্পন্ন থিওরিটিক্যাল ক্লাস ও স্নাতক-স্নাতকোত্তর শেষ সেমিস্টারের থিওরিটিক্যল ক্লাস আগামী আগস্ট মাসের মধ্যে সম্পন্ন করা এবং আগামী সেপ্টেম্বর থেকে পরবর্তী সেমিস্টারের থিওরিটিক্যাল ক্লাস শুরু করাসহ বিভিন্ন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

মিডটার্ম বা কোনো পরীক্ষা অনলাইনে না নেওয়ার জন্য বিজ্ঞপ্তিতে নির্দেশনা দেওয়া হয়। তবে অ্যাসাইনমেন্ট অনলাইনে নেওয়া যাবে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, স্নাতক চতুর্থ বর্ষের ক্লাস সম্পন্ন হওয়ার পর স্নাতকোত্তর প্রথম সেমিস্টারের ক্লাস শুরু করতে হবে। শিক্ষার্থীদের থিসিস জমা ও ইন্টার্নশিপের বিষয়ে সংশ্লিষ্ট চেয়ারম্যান/পরিচালক একাডেমিক কমিটির মাধ্যমে ব্যবস্থা নেবেন।

সভায় সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়, ক্যাম্পাসে ক্লাস শুরু হলে রিফ্রেশমেন্ট ক্লাসের জন্য তিন সপ্তাহ সময় দেওয়া হবে এবং তখন ব্যবহারিক ক্লাসও গ্রহণ করা হবে। অনলাইন ক্লাসের ভিডিও ইউটিউব/ফেসবুক প্ল্যাটফর্মেও যেন আপলোড করা হয়, যাতে শিক্ষার্থীরা যেকোনো সময় তা দেখতে পান।

সভায় অনলাইন ক্লাস গ্রহণের সুবিধার্থে প্রত্যেক শিক্ষার্থীর কাছে ইন্টারনেট সুবিধা পৌঁছানোর জন্য শিক্ষা মন্ত্রণালয় যেসব পদক্ষেপ নিয়েছে, তা দ্রুত বাস্তবায়নের আহ্বান জানানো হয়।

সভায় বিশ্ববিদ্যায়ের কোষাধ্যক্ষ, বিভিন্ন অনুষদের ডিন, ইনস্টিটিউট পরিচালক, বিভাগীয় চেয়ারম্যান, রেজিস্ট্রার, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রকসহ অন্যরা অংশ নেন।