বাফুফে সভাপতি পদে লড়বেন ডাকসুর সাবেক ক্রীড়া সম্পাদক মানিক


Dhaka
Published: 2020-09-12 23:34:19 BdST | Updated: 2020-10-21 05:52:12 BdST

বহুল আলোচিত বাফুফের নির্বাচনে সভাপতি পদে কাজী সালাউদ্দিনের এখন একমাত্র প্রতিদ্বন্দ্বী ডাকসুর সাবেক ক্রীড়া সম্পাদক শফিকুল ইসলাম মানিক।

বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফ) নির্বাচন আগামী ৩ অক্টোবর। দেশের ফুটবলের সর্বোচ্চ সংস্থার এই নির্বাচনে ২১ পদের জন্য ৪৯ জন মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছিলেন। বিশেষ করে সভাপতি পদে ত্রিমুখী লড়াই হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু আজ শনিবার হঠাৎ করেই নির্বাচন থেকে সরে যাওয়ার ঘোষণা দেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ-ডাকসুর সাবেক ক্রীড়া সম্পাদক বাদল রায়।

বাফুফে সূত্রে জানা গেছে, আজ ছিল মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন। বিকেল ৫টা পর্যন্ত মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের সময় থাকলেও এক ঘণ্টা পর বাফুফে সাধারণ সম্পাদক আবু নাঈম সোহাগের কাছে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের চিঠি দিয়ে যান বাদল রায়ের স্ত্রী মাধুরী রায়।

এদিকে সিনিয়র সহসভাপতি পদে আব্দুস সালাম মুর্শেদীর বিপক্ষে লড়বেন আরেক সাবেক তারকা ফুটবলার শেখ মোহাম্মদ আসলাম।

সহসভাপতি পদের প্রার্থীরা হলেন- মহিউদ্দিন আহমেদ মহি, তাবিথ আউয়াল, শেখ মুহাম্মদ মারুফ হাসান, এস এম আব্দুল্লাহ আল ফুয়াদ, কাজী নাবিল আহমেদ, আমিরুল ইসলাম বাবু, আতাউর রহমান ভূঁইয়া মানিক ও ইমরুল হাসান।

আর কার্যনিবাহী সদস্যের জন্য ১৫ পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন ৩৬ জন।

গত ৫ থেকে ৭ সেপ্টেম্বর মনোনয়নপত্র বিলি হয়। গত মঙ্গলবার ৪৯ প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করেন। চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করা হবে ১৩ সেপ্টেম্বর।

এর আগে গত ২৮ মার্চ অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত হয়েছিল বাফুফের নির্বাচন। ২০ এপ্রিল হওয়ার কথা ছিল সেই নির্বাচন। কিন্তু করোনাভাইরাসের কারণে ফিফা ও এএফসির অনুমতি নিয়ে নির্বাচন অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত ঘোষণা করা হয়।

বাফুফের কার্যনির্বাহী কমিটির মেয়াদ শেষ হয়েছিল গত ৩০ এপ্রিল। ফিফা নতুন নির্বাচন না হওয়া পর্যন্ত বর্তমান কমিটিকে দায়িত্ব চালিয়ে যাওয়ার ক্ষমতা দেয়।

সম্প্রতি ক্রীড়া মন্ত্রণালয় ঘোষণা দেয়, স্বাস্থ্যবিধি মেনে সীমিত আকারে অনুশীলন ও খেলাধুলা চালু করার। এর পরই বাফুফে নির্বাচন আয়োজনের সিদ্ধান্ত নেয়।