অভ্যন্তরীণ কোন্দলে আহত সিরাজগঞ্জ ছাত্রলীগ নেতার মৃত্যু


Dhaka
Published: 2020-07-05 19:22:27 BdST | Updated: 2020-08-09 05:03:52 BdST

সিরাজগঞ্জে ছাত্রলীগের অভ্যন্তরীণ কোন্দলে আহত হয়ে টানা ৯ দিন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে জেলা ছাত্রলীগের সহ-সাধারণ সম্পাদক এনামুল হক বিজয়ের হাসপাতালে মৃত্যু হয়েছে।

রবিবার (৫ জুলাই) দুপুরে রাজধানীর জাতীয় নিউরোসায়েন্স হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সিরাজগঞ্জ সদর থানার ওসি হাফিজুর রহমান। তিনি জানান, অনলাইনে ঢাকার শেরেবাংলা নগর থানায় সুরতহাল প্রতিবেদন পাঠানো হয়েছে। ময়না তদন্তের পর বিজয়ের লাশ সিরাজগঞ্জের কামারখন্দ উপজেলায় চালা গ্রামে পাঠানো হবে। সেখানেই তার দাফন সম্পন্ন করা হবে।

এদিকে, এ ঘটনার প্রতিবাদে জেলা ছাত্রলীগের একাংশ জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের সামনে অবস্থান নিয়ে ঘণ্টাব্যাপী বিক্ষোভ করেছে।

গত ২৬ জুন বিকেলে সিরাজগঞ্জে বর্ষীয়ান জাতীয় নেতা সাবেক মন্ত্রী প্রয়াত মোহাম্মদ নাসিমের স্মরণে দোয়া মাহফিলের আয়োজন করে জেলা ছাত্রলীগ। ওই অনুষ্ঠানে আসার পথে জেলা শহরের বাজার স্টেশন এলাকায় বিজয়ের ওপর হামলা চালিয়ে মাথায় কুপিয়ে জখম করে প্রতিপক্ষ। তাকে এনায়েতপুর খাজা এনায়েতপুর মেডিকেল কলেজে ভর্তি করা হয়। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে পরদিন ২৭ জুন ঢাকার নিউরোসায়েন্স হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানেই আইসিইউতে রেখে তাকে চিকিৎসা দেওয়া হয়। ৯ দিন লাইভ সাপোর্টে থাকার পর আজ তার মৃত্যু হয়।

ওই হামলার ঘটনায় বিজয়ের বড় ভাই রুবেল বাদী হয়ে জেলা ছাত্রলীগের দুই সাংগঠনিক সম্পাদকসহ সংগঠনের পাঁচ নেতাকর্মীর নামোল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা চার/পাঁচ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন। এরই মধ্যে মামলার এজাহারভুক্ত পাঁচজনের মধ্যে চারজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এদের মধ্যে ছাত্রলীগ নেতা আশিকুর রহমান বিজয়, জাহিদুল ইসলাম ও সাগর কারাগারে রয়েছেন। জামিনে মুক্ত রয়েছেন আরেক সাংগঠনিক সম্পাদক আল-আমিন।

গত ২৮ জুন মামলার দুই আসামি জেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শহরের সয়াগোবিন্দ ভাঙ্গাবাড়ী মহল্লার আল-আমিন ও আরেক সাংগঠনিক সম্পাদক শহরের দিয়ারধানগড়া মহল্লার শিহাব আহমেদ জিহাদকে দল থেকে সাময়িক বহিষ্কার করে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ।