ঢাবি ছাত্রী ও গৃহবধূ ধর্ষণের প্রতিবাদে ছাত্রলীগের বিক্ষোভ কাল


Dhaka
Published: 2020-09-26 19:54:41 BdST | Updated: 2020-10-21 21:33:11 BdST

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী ধর্ষিত এবং সিলেটের এমসি কলেজে তরুণী গণধর্ষণের শিকার হওয়ার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মাবেশের আয়োজন করেছে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ

আগামীকাল রবিবার বেলা সাড়ে এগারোটায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় রাজু ভাস্কর্যের সামনে এ  বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি সনজিৎ চন্দ্র দাস বলেছেন, আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছোট বোন ধর্ষণের শিকার হয়েছেন। এটি অত্যন্ত দুঃখজনক। বাংলাদেশ ছাত্রলীগ অসহায় সেই বোনটির পাশে সব সময় থাকবে। ধর্ষণের বিচার দাবিতে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তোলা হবে।

তিনি বলেন, একজন ছাত্র প্রতিনিধির (ভিপি নূর) কথা বলার ধরণ দেখেই বোঝা যায় সে মাদকাসক্ত মানসিক বিকারগ্রস্ত। নিজ সংগঠনের একজন ছাত্রী ধর্ষণের শিকার হলেও তাদের কোনো প্রতিবাদ নেই। তাদের পুরো সংগঠন এই ঘটনায় চুপ করে আছে। এতেই বোঝা যায় তারা এই ঘটনার সাথে জড়িত। তারা তাদের সংগঠনের কর্মীর পাশে না দাঁড়ালেও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ তাদের বোনের ন্যায় বিচারের জন্য মাঠে থাকবে।

ওই মেয়েটির বিচার পাওয়ার জন্য ছাত্রলীগ সহযোগিতা করবে কি না— প্রশ্নের জবাবে সনজিৎ বলেন, আমি ফেসবুকে, বিভিন্ন জায়গায়, যেখানে যেখানে দরকার সরব ছিলাম। আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি ছোট বোন, সে যে ছাত্র সংগঠনই করুক সেটা করার তার স্বাধীনতা আছে। ওই মেয়ে চাইলে প্রয়োজনে তার সুবিচারের জন্য আমরা বিভিন্ন কর্মসূচি দেব, প্রয়োজনে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে স্মারকলিপি দেব।

প্রসঙ্গত, ছাত্র অধিকার পরিষদের নুর-মামুনসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে গত সোমবার (২১ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর কোতওয়ালী থানায় একটি মামলা করা হয়। এর আগে রবিবার (২০ সেপ্টেম্বর) বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণ, সহায়তা ও হুমকির অভিযোগে এদের বিরুদ্ধে লালবাগ থানায় প্রথম মামলাটি করা হয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষে ইসলামিক স্টাডিজ পড়ুয়া এক ছাত্রী ওই মামলা করেন। তিনি বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হলের ছাত্রী। লালবাগ থানার মামলার বর্ণনায় ওই ছাত্রী হাসান আল মামুনের সঙ্গে প্রেম ও প্রণয়ের কথা জানিয়ে বিয়ে নিয়ে টালবাহানার অভিযোগ তুলেছেন।

এ মামলার অন্য আসামিরা হলেন ছাত্র অধিকার পরিষদের যুগ্ম আহবায়ক নাজমুল হাসান, মো. সাইফুল ইসলাম, মো. নাজমুল হুদা ও মো. আবদুল্লাহ হিল বাকী। একই তরুণীর করা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলার মূল আসামি পরিষদের যুগ্ম আহবায়ক নাজমুল হাসান।

আর তিন নম্বর আসামি নুরুল হক নুর। বাকিরা হলেন আহবায়ক হাসান আল মামুন, যুগ্ম আহবায়ক মো. সাইফুল ইসলাম, মো. নাজমুল হুদা ও মো. আবদুল্লাহ হিল বাকী।

মামলায় বিবরণে বলা হয়েছে, কোতোওয়ালি এলাকার সদরঘাট হোটেল অ্যান্ড রেস্টুরেন্টে এ ঘটনা ঘটেছে। গত ৯ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যা ৭টা ৪০ থেকে রাত সাড়ে ৮টার মধ্যে ঘটনার তারিখ ও সময় উল্লেখ করা হয়েছে।