ইউএস-বাংলা বিমান বিধ্বস্তের ঘটনায় ছাত্রলীগের শোক


টাইমস অনলাইনঃ
Published: 2018-03-12 21:05:55 BdST | Updated: 2018-06-24 13:30:21 BdST

নেপালের কাঠমান্ডুর ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বিধ্বস্তের ঘটনায় শোক প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ।নেপালে বিধ্বস্ত হওয়া ইউএস-বাংলার বিমানে সিলেটের জালালাবাদ রাগীব-রাবেয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ১৩ শিক্ষার্থী ছিলেন। এদের সবাই মারা গেছেন বলে জানিয়েছে কলেজ কর্তৃপক্ষ। তারা সকলেই নেপালি বংশোদ্ভূত। কলেজের ছুটিতে নিজ দেশে বেড়াতে যাচ্ছিলেন ওই ১৩ শিক্ষার্থী।

সোমবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ শোক প্রকাশ করা হয়। 

শোকবাণীতে লেখা হয়েছে, 'আমরা বাংলাদেশ ছাত্রলীগ শোকসন্তপ্ত সদস্যদের পরিবারের প্রতি গভীগ শোক ও সমবেদনা এবং আহতদের দ্রুত সুস্থতা কামনা করছি'।  

একই পরিবারের এই ৩জনই নিহত হয়েছে 

এদিকে জানা গেছে, জিয়া হল ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম রিমু এবং তার পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা নেপালে বিমান দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছে।

এ ঘটনায় শোক জানিয়েছে জিয়া হল ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুলাহ আল মাসুদ। তিনি তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে লিখেছেন, 'আমরা গভীরভাবে শোকাহত এবং নিহতদের আত্মার মগফিরাত কামনা করছি'।

এরা হলেন- রাগীব-রাবেয়া মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থী সঞ্জয় পৌডেল, সঞ্জয়া মহারজন, নেগা মহারজন, অঞ্জলি শ্রেষ্ঠ, পূর্ণিমা লোহানি, শ্রেতা থাপা, মিলি মহারজন, শর্মা শ্রেষ্ঠ, আলজিরা বারাল, চুরু বারাল, শামিরা বেনজারখার, আশ্রা শখিয়া ও প্রিঞ্চি ধনি।

নেপালের কাঠমান্ডুর ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বিধ্বস্ত বাংলাদেশের বেসরকারি বিমানসংস্থা ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের বিমান বিধ্বস্তের ঘটনায় ৫০ জনের প্রাণহানি ঘটেছে। সোমবার নেপালের স্থানীয় সময় দুপুর ২টা ২০ মিনিটে ৪ ক্রুসহ ৬৭ আরোহীবাহী বিমানটি বিধ্বস্ত হয়।

নেপাল সেনাবাহিনীর একজন মুখপাত্র বার্তাসংস্থা রয়টার্সকে বিমান বিধ্বস্তের ঘটনায় ৫০ জনের নিহতের তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

বিডিবিএস 

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।