23659

জয়-লেখক, সঞ্জিত-সাদ্দাম কী পারবেন হল কমিটি দিতে?

জয়-লেখক, সঞ্জিত-সাদ্দাম কী পারবেন হল কমিটি দিতে?

2022-01-07 13:51:42

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৮টি আবাসিক হল শাখা ছাত্রলীগের কমিটি হচ্ছে না তিন বছর ধরে। দুই দফায় কমিটি গঠনের জন্য হল সম্মেলনের তারিখ ঠিক করা হলেও শেষ পর্যন্ত তা পরিণতি পায়নি। এখন বলা হচ্ছে, এই জানুয়ারিতে হল সম্মেলন হবে। এ নিয়েও তৈরি হয়েছে অনিশ্চয়তা। হতাশা বিরাজ করছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় হল ছাত্রলীগের নেতা-কর্মী ও পদপ্রার্থীদের মাঝে। কেন্দ্রীয় ও ঢাবির ৪ শীর্ষনেতা সুখে দিন কাটালেও অমানবিক দিন কাটছে প্রার্থীদের। 

গত ডিসেম্বর মাসে আল নাহিয়ান খান জয় গণমাধ্যমকে বলেছিলেন,  এ মাসেই সম্মেলনের তারিখ হবে এবং জানুয়ারিতে হল কমিটি হবে কিন্তু তার কোন লক্ষণই দেখা যাচ্ছে না। 

২৮ ডিসেম্বর এর নির্ধারিত  তারিখ পিছিয়ে যাওয়ার পেছনে মূল কারণ ছাত্রলীগ সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয়। তার কৌশলের কারণেই হল সম্মেলন পিছিয়ে গিয়েছে মনে করেন ছাত্রলীগের নেতাকর্মীর। 

গত ৪ জানুয়ারি পালিত হয়েছে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ৭৪তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। সেদিন ঢাবির অপরাজেয় বাংলার সামনে সংঘর্ষে লিপ্ত হয় ঢাকা কলেজ ও ঢাবির কবি জসিম উদ্দিন হল। মাথায় আটটি সেলাই লাগে লেখক ভট্টাচার্যের। কর্মীরা বলছেন, দুইটি ইউনিটেই কমিটির নাই বিধায় এমন বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হয়েছে।

এদিকে এক ফেইসবুক মন্তব্যে ঢাবি ছাত্রলীগের সভাপতি  সঞ্জিত চন্দ্র দাস লিখেছেন, জানুয়ারিতেই কমিটি হতে হবে। আমি আর সাদ্দাম পুরোপুরি প্রস্তুত আছি। জানুয়ারিতে হতেই হবে নইলে আমিও আন্দোলন করবো হল কমিটির জন্য।

ঢাবি ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন একাধিকবার গণমাধ্যমকে বলেছেন, জানুয়ারিতে তারা হল সম্মেলন করতে পারবেন বলে আশাবাদী। 

ঢাবির বিভিন্ন হলে ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক হওয়ার জন্য ৩৩০ জন পদপ্রার্থী সিভি জমা দিয়েছেন। তাদের না হচ্ছে পড়াশোনা, না হচ্ছে রাজনীতি। ফলে সর্বত্র  প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হচ্ছে। 

এত সবের মাঝে অনেকের মধ্যে সংশয় তৈরি হয়েছে যে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের ৩০তম সম্মেলন যেকোনো মুহূর্তে ঘোষণা হতে পারে। যদি সম্মেলনের ঘোষণা আসে তাহলে পদপ্রার্থীদের কী হবে সে নিয়ে আরো চিন্তিত তারা।

একটি হলের শীর্ষ পদপ্রত্যাশী নেতা বলেন, ‘দীর্ঘ তিন বছর ধরে আমরা শীর্ষ নেতাদের প্রটোকল দিয়ে যাচ্ছি। এর জন্য নিজেদের একাডেমিক পড়াশোনায়ও মনোযোগ কম দেওয়া হয়েছে। কিন্তু আমরা সেই পরিশ্রমের কোনো ফল দেখতে পাচ্ছি না। এটা হতাশাজনক। হল কমিটি হয়ে গেলে আগের মতো প্রটোকল না–ও পাওয়া যেতে পারে—এই আশঙ্কা থেকে কমিটি দেওয়া হচ্ছে না। এ ছাড়া শীর্ষ নেতাদের মধ্যে এমন ধারণা আছে যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের হল সম্মেলন হয়ে গেলে কেন্দ্রীয় ও বিশ্ববিদ্যালয় কমিটিও দ্রুত ভেঙে যেতে পারে।’

গণমাধ্যমে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ বলেছেন,  ছাত্রলীগের সম্মেলন নিয়ে আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতাদের মাঝে আলোচনা হচ্ছ।  করোনা পরিস্থিতি আরেকটু ভালো হলে এ নিয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

এদিকে আল নাহিয়ান খান জয়কে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা ফোন দিয়ে পান না। শুধুমাত্র যারা তার পকেট ম্যান এবং কাছের লোক তারাই তার কাছে পৌঁছতে পারেন। গণমাধ্যমের কর্মীরাও তাকে ফোন দিয়ে পান না বলে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে। 

সম্পাদক: ইসমাঈল হোসাইন রাসেল
যোগাযোগ: ক্যাম্পাস টাইমস
৪৩ শহীদ নজরুল ইসলাম সড়ক, হাটখোলা রোড, চৌধুরী মল, টিকাটুলি, ঢাকা-১২০৩
মোবাইল: ০১৬২৫ ১৫৬৪৫৫
ইমেইল:[email protected]