এক কলেজ থেকেই মেডিক্যালে ভর্তির সুযোগ পেলেন ৩৯ শিক্ষার্থী


Desk report | Published: 2022-04-07 04:15:54 BdST | Updated: 2022-06-29 07:23:03 BdST

নীলফামারীর সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজ থেকে ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষের এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষায় ৩৯ শিক্ষার্থী মেডিক্যালে ভর্তির সুযোগ পেয়েছেন।

মঙ্গলবার (৫ এপ্রিল) দুপুরে ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষের এমবিবিএস প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষার ফল ঘোষণার পর দেখা গেছে, ওই প্রতিষ্ঠানের ৩৯ জন উত্তীর্ণ হয়েছেন। এর মধ্যে ২৩ জন ছাত্রী ও ১৬ জন ছাত্র। গত বছর একই প্রতিষ্ঠান থেকে ৪০ শিক্ষার্থী ভর্তির সুযোগ পেয়েছেন। এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন নীলফামারীর সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজের অধ্যক্ষ গোলাম আহমেদ ফারুক।

তিনি বলেন, ‘সৈয়দপুর শহরের ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সরকারি বিজ্ঞান কলেজ। বরাবরই এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষায় ভালো ফল করে এই কলেজের শিক্ষার্থীরা। বিশ্ববিদ্যালয়, মেডিক্যাল ও ইঞ্জিনিয়ারিংসহ বিভিন্ন পাবলিক পরীক্ষায় শিক্ষার্থীরা মেধার স্বাক্ষর রাখে। গত বছর প্রতিষ্ঠান থেকে ৪০ জন মেডিক্যালে ভর্তির সুযোগ পেয়েছিল। এবার ৩৯ শিক্ষার্থী সুযোগ পেয়েছে। শিক্ষার্থীদের এই অর্জনে আমরা গর্বিত।’

কলেজ সূত্র জানায়, চলতি বছর এই প্রতিষ্ঠান থেকে এইচএসসিতে ২৬৮ পরীক্ষার্থী অংশ নিয়ে ২৬৫ জন পাস করেন। এর মধ্যে ২৪৯ জন পেয়েছেন জিপিএ-৫। প্রতিষ্ঠানটি থেকে প্রতি বছর বিপুল সংখ্যক শিক্ষার্থী মেডিক্যালে ভর্তির সুযোগ পান। ২০২১ সালে ৪০, ২০২০ সালে ৪০, ২০১৮ সালে ৩৮ ও ২০১৬ সালে ৩৮ শিক্ষার্থী সুযোগ পেয়েছেন। বুয়েট, চুয়েট ও রুয়েট ছাড়াও বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ পেয়েছেন অন্যান্য শিক্ষার্থীরা।

এবার মেডিক্যাল ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়া ৩৯ জনের মধ্যে সবচেয়ে বেশি সুযোগ পেয়েছেন রংপুর মেডিক্যাল কলেজে। এখানে ভর্তির সুযোগ পাওয়া পাঁচ শিক্ষার্থী হলেন সাদিয়া পুস্পিতা, বিসমে জান্নাত হিয়া, ওসওয়াতুন হাসানা, নাবিল ও সঙ্গী।

এর পরের অবস্থানে আছে বগুড়া ও সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ। এই দুই প্রতিষ্ঠানে নয় জন ভর্তির সুযোগ পেয়েছেন। বগুড়ায় জিনাত রেহেনা ইমু, আফিয়া হুমায়রা, ফারহানা ইসলাম স্মৃতি, মাহমুদুল হাসান মাহিন ও নাহিদ হাসান রিদম এবং সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যালে নুসরাত জাহান, মিনহাজুল ইসলাম, হামজা ও রিশাদ।

এছাড়া তিন জন করে ভর্তির সুযোগ পেয়েছেন কুষ্টিয়া, দিনাজপুর ও নীলফামারী মেডিক্যাল কলেজে। কুষ্টিয়ায় সুযোগ পাওয়া তিন শিক্ষার্থী হলেন দিলরুবা আখতার, আদুরি ফারজানা তাসনিম ও রংগন।

দিনাজপুর মেডিক্যালে সুযোগ পেয়েছেন স্বর্ণা রায়, আরাফাত আফ্রিদি রোমান ও মাহিন। নীলফামারী মেডিক্যালে সুযোগ পেয়েছেন সাব্বির, মাহিয়া আফরোজ ও সাবরিনা স্বর্ণা।

ময়মনসিংহ ও সিলেট মেডিক্যালে দুজন করে ভর্তির সুযোগ পেয়েছেন। তারা হলেন শাফকাত ই শিহাব তানিম ও সাদিয়া আক্তার শিমলা এবং মাহবুব ও প্রিতম কুমার রায়।

এছাড়া তিন জন করে ভর্তির সুযোগ পেয়েছেন কুষ্টিয়া, দিনাজপুর ও নীলফামারী মেডিক্যাল কলেজে। কুষ্টিয়ায় সুযোগ পাওয়া তিন শিক্ষার্থী হলেন দিলরুবা আখতার, আদুরি ফারজানা তাসনিম ও রংগন।

দিনাজপুর মেডিক্যালে সুযোগ পেয়েছেন স্বর্ণা রায়, আরাফাত আফ্রিদি রোমান ও মাহিন। নীলফামারী মেডিক্যালে সুযোগ পেয়েছেন সাব্বির, মাহিয়া আফরোজ ও সাবরিনা স্বর্ণা।

ময়মনসিংহ ও সিলেট মেডিক্যালে দুজন করে ভর্তির সুযোগ পেয়েছেন। তারা হলেন শাফকাত ই শিহাব তানিম ও সাদিয়া আক্তার শিমলা এবং মাহবুব ও প্রিতম কুমার রায়।

এছাড়া ১২ জন ১২টি মেডিক্যাল কলেজে ভর্তির সুযোগ পেয়েছেন। তারা হলেন ঢাকা মেডিক্যালে শাহরিয়ার রাসেল, স্যার সলিমুল্লাহ মেডিক্যাল কলেজে জাহিদা হক, চট্টগ্রাম মেডিক্যালে মেনহাজ তাবাসসুম সিথি, শের-ই-বাংলা মেডিক্যালে রুমাইয়া বিনতে রফিক, জিয়াউর রহমান মেডিক্যালে উম্মে সাদিয়া ও সাতক্ষীরা মেডিক্যালে রাজিউর রহমান রাজু।

কুমিল্লা মেডিক্যালে আফিফা আফজাল ইজমা, পাবনা মেডিক্যালে সৈরভ বিশ্বাস, মুগদা মেডিক্যাল কলেজে মায়িশা জান্নাত শাম্মিত, পটুয়াখালী মেডিক্যালে আতিকা ইয়াসমিন অগ্নি, ফরিদপুর মেডিক্যালে ইমরুল কায়েস ইমন এবং জামালপুর মেডিক্যালে জিম।

নীলফামারী মেডিক্যালে ভর্তির সুযোগ পাওয়া সাব্বির, মাহিয়া আফরোজ ও সাবরিনা স্বর্ণা জানান, ‘সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজে নিয়মমতো লেখাপড়া করানো হয়। এখানে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের ক্লাস ফাঁকি দেওয়ার সুযোগ নেই। করোনা মহামারিতেও আমরা অনলাইনে ক্লাস করেছি। এ কারণে আজ কলেজ থেকে ৩৯ শিক্ষার্থী বিভিন্ন মেডিক্যালে ভর্তির সুযোগ পেয়েছেন। আমাদের সুযোগ পাওয়ার পেছনে শিক্ষকদের ভূমিকা বেশি। আমরা সবাই উচ্ছ্বসিত। একই সঙ্গে এই কলেজ নিয়ে আমরা গর্বিত।’

কলেজের অধ্যক্ষ গোলাম আহমেদ ফারুক বলেন, ‘এবার ৩৯ শিক্ষার্থী দেশের বিভিন্ন মেডিক্যাল কলেজে ভর্তির সুযোগ পেয়েছে। আশা করছি, আগামীতেও এই ধারা অব্যাহত থাকবে। আমি তাদের মঙ্গল কামনা করি।’