চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে 'বঙ্গবন্ধু চেয়ার' নিয়ে দ্বন্দ্ব


Chattagram | Published: 2021-03-30 14:59:39 BdST | Updated: 2021-04-19 04:55:03 BdST

'বঙ্গবন্ধু চেয়ার' পদ নিয়ে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) দুই উপাচার্যের (বর্তমান উপাচার্য ও সাবেক উপাচার্য) মধ্যে তুমুল দ্বন্দ্ব চলছে। বর্তমান উপাচার্য অধ্যাপক ড. শিরীন আখতারের বিরুদ্ধে সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে অভিযোগ দিয়েছেন। সেই অভিযোগ তদন্তে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় কমিটি গঠনের নির্দেশনা দিয়েছে ইউজিসিকে। ইউজিসিও গঠন করেছে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্র জানায়, উপাচার্য পদে ড. শিরীন আখতার দায়িত্ব নেয়ার পর ‘বঙ্গবন্ধু চেয়ার’ পদ থেকে সাবেক উপাচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দিনকে অব্যাহতি দেয়া হয়।

এই অব্যাহতি দেয়ার প্রক্রিয়াকে অবৈধ, বেআইনি, অবমাননাকর ও বিশ্ববিদ্যালয় আইনের পরিপন্থী উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে ড. শিরীন আখতারের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দেন ড. ইফতেখার উদ্দিন। এ অভিযোগ তদন্তে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় ইউজিসিকে তদন্ত কমিটি গঠনের নির্দেশ দেয়।

গত বছরের ২৬ আগস্ট ইউজিসির সদস্য অধ্যাপক ড. দিল আফরোজা বেগমকে আহ্বায়ক করে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়৷ এই কমিটির সদস্য করা হয় অধ্যাপক ড. সাজ্জাদ হোসেনকে। এছাড়া ইউজিসির পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় ম্যানেজমেন্ট বিভাগের উপ-পরিচালক আমিরুল ইসলাম শেখকে সদস্য সচিবের দায়িত্ব দেয়া হয়। তবে দীর্ঘ সময় পার হলেও এ বিষয়ে কোনো প্রতিবেদন জমা দেয়নি তদন্ত কমিটি।

এদিকে ‘বঙ্গবন্ধু চেয়ার’ ইস্যুতে ইউজিসির তদন্ত প্রতিবেদন আসার আগেই গত ২৭ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫২৯তম সিন্ডিকেট (এক্সট্রা অর্ডিনারি) সভায় ইতিহাসবিদ ও মুক্তিযুদ্ধ গবেষক অধ্যাপক মুনতাসীর মামুনকে চবির ‘বঙ্গবন্ধু চেয়ার’ পদে নিয়োগ দেয়া হয়। যোগদানের তারিখ থেকে দুই বছর মেয়াদে তাকে এ পদে নিয়োগ দেয়া হয়।

পদটিতে মুনতাসীর মামুন যোগদানের পরপরই ১৬ মার্চ ইউজিসির গঠিত তদন্ত কমিটিকে আরও একটি চিঠি দেন ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী।

এ চিঠিতে তিনি উল্লেখ করেন, তদন্তাধীন বিষয়ে তদন্ত কমিটির কোনো রূপ প্রতিবেদন প্রদান বা ব্যবস্থা গ্রহণকে পরিপূর্ণ অবজ্ঞা করে বর্তমান উপাচার্য অযৌক্তিক, অনৈতিক ও অবৈধ পন্থা অবলম্বন করছেন। আমি মনে করি, মুক্তির মহানায়ক জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদযাপনের প্রাক্কালে এই ধরনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ মহান নেতা বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে গবেষণা কর্ম পরিচালনার ক্ষেত্রে চরম মানহানি ও অমর্যাদাকর কদর্য অপকৌশল।

তিনি এই চিঠিতে তদন্ত কমিটিকে দ্রুততম সময়ের মধ্যে প্রতিবেদন প্রদান করে বিষয়টির সুরাহা করার অনুরোধও জানিয়েছেন।

এর আগে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পাঠানো চিঠিতে সাবেক উপাচার্য ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী উল্লেখ করেন, বঙ্গবন্ধু চেয়ার নির্বাহী কমিটির অনুমোদনক্রমে তিনি ওই পদে যোগদান করেন। ওই কমিটিতে তৎকালীন উপ-উপাচার্য হিসেবে ড. শিরীন আখতারও ছিলেন। তিনি নিজেই বঙ্গবন্ধু চেয়ার পদে তাকে নিয়োগের বিষয়ে অনুমোদন দিতে স্বাক্ষর করেন। কিন্তু উপাচার্য হিসেবে দায়িত্ব নেয়ার পরপরই তিনি ‘বঙ্গবন্ধু চেয়ার’ পদবি ব্যবহার না করতে ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরীকে চিঠি দেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকজন জ্যেষ্ঠ শিক্ষক নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, বঙ্গবন্ধু চেয়ার নিয়ে বিরোধের সমাধানে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নির্দেশে ইউজিসি যেহেতু তদন্ত কমিটি গঠন করেছে, সেহেতু চবি উপাচার্যের উচিত ছিল কমিটির প্রতিবেদনের জন্য অপেক্ষা করা। তিনি অপেক্ষা না করে ইতিহাসবিদ ও মুক্তিযুদ্ধ গবেষক মুনতাসীর মামুনকে এ পদে বসানোর ব্যবস্থা নিয়েছেন। মূলত ড. ইফতেখার উদ্দিনের ওপর ব্যক্তিগত বিরোধের ক্ষোভ ঝাড়তেই তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনের দিকে ভ্রুক্ষেপ না করে বর্তমান উপাচার্য মুনতাসীর মামুনকে ঢাল হিসেবে ব্যবহার করছেন। যা কিছুতেই কাম্য নয়।

এ বিষয়ে সাবেক উপাচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, বঙ্গবন্ধু চেয়ার পদে আমাকে বিশ্ববিদ্যালয় নিয়োগ দিয়েছে। এ পদে যোগদানের আগে আমি শর্ত দিয়েছি কোনো আর্থিক সুবিধা আমি নেব না। বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে গবেষণা করতে আমি সরকারি কোষাগারের টাকা হাতে নিতে রাজি নই। অথচ সরকারবিরোধী হিসেবে সক্রিয় এবং মহামান্য রাষ্ট্রপতি ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে ফেসবুকে প্রকাশ্যে কুৎসা রটনাকারী হিসেবে শিক্ষা মন্ত্রণালয় যাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিতে বলেছে, সে শিক্ষকদের সঙ্গে হাত মিলিয়ে উপাচার্য ড. শিরীন আখতার আমাকে এই পদ ব্যবহার না করতে চিঠি দিয়েছেন। আমি এ বিষয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে ইউজিসি তদন্ত কমিটি গঠন করলো। কিন্তু এ কমিটির প্রতিবেদন আসার আগেই চবি ‘বঙ্গবন্ধু চেয়ার’ পদে আরেকজনকে নিয়োগ দেয়া হলো। যা রাষ্ট্রীয় সিদ্ধান্তের প্রতি ধৃষ্ঠতা প্রদর্শনের শামিল।

জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. শিরীন আখতার বলেন, সকল বিধি মেনেই বঙ্গবন্ধু চেয়ার পদে নিয়োগ দেয়া হয়েছে। এ বিষয়ে গণমাধ্যমে বলতে আমরা বাধ্য নই।