পেনশন স্কিম বাতিলের দাবিতে কর্মবিরতিতে রাবি-রুয়েট শিক্ষকরা, জুলাই থেকে লাগাতার আন্দোলন


Abu Saleh Shoeb | Published: 2024-06-04 18:09:33 BdST | Updated: 2024-07-23 20:05:38 BdST

অর্থ মন্ত্রণালয়ের কর্তৃক জারিকৃত পেনশন-সংক্রান্ত প্রত্যয় স্কিম প্রজ্ঞাপন প্রত্যাহার, বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকের সুপার গ্রেডে অন্তর্ভুক্তকরণ এবং স্বতন্ত্র বেতন কাঠামো প্রবর্তনের দাবিতে অবস্থান কর্মসূচি ও অর্ধদিবস কর্মবিরতি পালন করেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি) ও রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (রুয়েট) শিক্ষকরা। দাবি বাস্তবায়ন না হলে পহেলা জুলাই থেকে লাগাতার কর্মসূচির ঘোষণা করেন তাঁরা।

মঙ্গলবার (৪ জুন) নিজ নিজ বিশ্ববিদ্যালয়ে সকাল ৯টায় এ কর্মসূচি শুরু হয়। এদিকে সকাল থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত অর্ধদিবস কর্মবিরতি পালন করেন তাঁরা।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. মো. হাবিবুর রহমান বলেন, অর্থ মন্ত্রণালয়ের জারীকৃত নতুন পেনশন কাঠামো বৈষম্যমূলক। বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের ঘোষিত কর্মসূচি অনুযায়ী আমরা রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকগণ এই অর্ধদিবস কর্মবিরতি পালন করেছি। তবে সকল পরীক্ষা এই কর্মসূচির আওতামুক্ত থাকবে। আমাদের দাবি মেনে না নেয়া পর্যন্ত আরও কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করবো।

রুয়েট শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক কামরুজ্জামান বলেন, এই নীতিমালা চরম বৈষম্যমূলক। অবিলম্বে এই নীতিমালা প্রত্যাহার করে শিক্ষকদের ক্লাসে ফেরার ব্যবস্থা করা হোক।

উল্লেখ্য, গত ২০ মার্চ এক প্রজ্ঞাপনে সর্বজনীন পেনশন ব্যবস্থায় নতুন স্কিম সম্পর্কে বিস্তারিত তুলে ধরে অর্থ মন্ত্রণালয়। এ স্কিমে দেশের ৪০০’র বেশি স্ব-শাসিত, স্বায়ত্তশাসিত, রাষ্ট্রায়ত্ত, সংবিধিবদ্ধ বা সমজাতীয় প্রতিষ্ঠানের ভবিষ্যৎ কর্মীদের বাধ্যতামূলকভাবে এ কর্মসূচির অন্তর্ভুক্ত হতে হবে। তবে এটা ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য বৈষম্য আখ্যা দিয়ে আন্দোলন শুরু করে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা।

এর আগে, গত ২৬ মে সর্বজনীন এই পেনশন স্কিম বাতিলের দাবিতে মানববন্ধন, ২৮ মে দুই ঘন্টা ক্লাস বর্জন করেন তাঁরা।