আইএলটিএস ছাড়া তুরস্কে স্কলারশিপের সুযোগ


Dhaka | Published: 2022-01-12 00:04:43 BdST | Updated: 2022-08-11 05:47:32 BdST

ইউরোপ ও এশিয়া মহাদেশের নয়নাভিরাম প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের দেশ তুরস্ক। দেশটির ভৌগলিক অবস্থান ইউরোপ ও এশিয়া মহাদেশে হওয়াতে জিওপলিটিক্যালি বা স্ট্র্যাটিজিক্যালি বিশ্ব রাজনীতিতে তুরস্ক খুবই গুরুত্বপূর্ণ স্থান দখল করে আছে। এদিকে গত দুই দশক ধরে শিক্ষা খাতে ব্যাপক আধুনিকায়নের পরিপ্রেক্ষিতে প্রতিবছর উচ্চশিক্ষার জন্য বিশ্বের প্রায় ১৭২টি দেশ থেকে ৫০০০ শিক্ষার্থীকে বৃত্তি দেয় তুরস্ক। এ সুবাদে বিপুল সংখ্যক শিক্ষার্থী পাড়ি জামায় এশিয়া-ইউরোপের এই দেশটিতে।

১০ জানুয়ারি থেকে ২০২২ শিক্ষা বছরের সরকারি বৃত্তির আবেদন নেওয়া শুরু হয়েছে এবং আবেদনের নেয়া চলবে আগামী ২০ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত।

আগ্রহী শিক্ষার্থীরা স্নাতক, স্নাতকোত্তর ও পিএইচডি প্রোগ্রামে বৃত্তি নিয়ে পড়াশোনার জন্য আবেদন করতে পারবেন। বৃত্তি প্রাপ্তরা তুরস্কের ৫৫টি শহরের ১০৫টি সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনার সুযোগ পাবেন।

তাছাড়া তুরস্কের সকল বিশ্ববিদ্যালয় ইউরোপীয় ইউনিয়নের ইরাসমাস এক্সচেঞ্জ প্রোগ্রাম এর অন্তর্ভুক্ত হওয়ায় শিক্ষার্থীরা ইরাসমাসের বৃত্তির আওতায় ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত বিভিন্ন দেশের বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নের সুযোগ পায়।

তুরস্ক সরকারের বৃত্তি পৃথিবীর সকল দেশের শিক্ষার্থীদের জন্য উন্মুক্ত। তুরস্ক সরকার বিভিন্ন স্তরে ৭০-৮০ বাংলাদেশি শিক্ষার্থীকে বৃত্তি দিয়ে থাকে প্রতিবছর । সাধারণত আবেদন করার এক মাসের মধ্যে প্রাথমিকভাবে নির্বাচিত শিক্ষার্থীদের মৌখিক পরীক্ষার জন্য ঢাকার তুরস্ক দূতাবাসে ডাকা হয়। মৌখিক পরীক্ষার দুই থেকে তিন মাসের পর চূড়ান্তভাবে নির্বাচিত শিক্ষার্থীদের ই-মেইল করা হয়। নির্বাচন প্রক্রিয়াটি বিশেষজ্ঞ প্যানেলের মাধ্যমে পুরোপুরি স্বাধী ভাবে তুরস্কের সরকারি বৃত্তি প্রদান কর্তৃপক্ষ তুর্কি বুর্সলারি (ইয়েতেবে) পরিচালনা করে থাকে।

বৃত্তির কয়েকটি ক্যাটাগরিতে অবেদন করার জন্য বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়। তা হলো,

১. অনার্স, মাস্টার্স এবং পিএইচডি।

২. যে কোন বিভাগের শিক্ষার্থী আবেদন করতে পারবেন।

৩. উচ্চতর গবেষণা প্রোগ্রাম, গত বছর থেকে শুরু হয়েছে।

৪. খেলাধুলা এবং সংস্কৃতিতে,গত বছর থেকে শুরু হয়েছে।

তুরস্ক সরকারের বৃত্তিতে নিম্নোক্ত সুযোগ-সুবিধা রয়েছে:

১. টিউশন ফিসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের যাবতীয় খরচ।

২. থাকা-খাওয়া সরকারি ডরমিটরিতে, যা সম্পূর্ণ ফ্রি।

৩. ফ্রি স্বাস্থ্য বিমা তথা বিনামূল্যে চিকিৎসাসেবা।

৪. এক বছরের তুর্কি ভাষা শিক্ষা কোর্স সম্পূর্ণ ফ্রি।

৫. মাসিক স্টাইপেন্ড (স্নাতক ৭০০ লিরা, স্নাতকোত্তর ৯৫০ লিরা ও পিএইচডিতে ১৪০০ লিরা প্রদান হয়)।

৬. যাওয়া-আসার ফ্রি বিমান টিকেট।

আবেদনের যোগ্যতা:

Ø অনার্স আবেদনের সর্বোচ্চ বয়স ২১ বছর, মাস্টার্সের জন্য সর্বোচ্চ ৩০ বছর, পিএইচডির জন্য সর্বোচ্চ ৩৫ বছর।

Ø যারা এইচএসসি উত্তীর্ণ হয়েছেন বা এইচএসসি পরীক্ষার্থী (তারা স্কুল, কলেজ প্রধান থেকে সম্ভাব্য ফলাফলের প্রত্যয়ন পত্র নিয়ে) অনার্স এর জন্য আবেদন করতে পরবেন।

Ø যারা অনার্স বা মাস্টার্স সম্পন্ন করেছেন বা যারা শেষ সেমিস্টারে আছেন (তারা ডিপার্টমেন্ট প্রধান বা কন্ট্রোলার থেকে সম্ভাব্য ফলাফলের প্রত্যয়ন পত্র নিয়ে) মাস্টার্স ও পিএইচডির জন্য আবেদন করতে পারবেন।

Ø তুরস্কের কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত থাকা যাবে না।

Ø ইংরেজি মাধ্যমে পড়তে চাইলে (IELTS, TOFEL, GRE, GMAT) লাগবে। সাধারণত তুরস্কের সব বিশ্ববিদ্যালয়ে তুর্কি ভাষায় শিক্ষা দেওয়া হয়। আইএলটিএস ছাড়াও আবেদন করা যাবে। 

Ø এই বৃত্তির জন্য প্রাথমিকভাবে দুটি যোগ্যতার ওপর ভিত্তি করে শিক্ষার্থীদের নির্বাচন করা হয়।

প্রথমত, একাডেমিক রেজাল্ট। অর্থাৎ অনার্সের জন্য এসএসসি/সমমান এবং এইচএসসি/সমমান পরীক্ষায় ৭০% নম্বর (তবে মেডিকেলের জন্য ৯০% নম্বর) এবং মাস্টার্স-পিএইচডির জন্য অনার্স ও মাস্টার্সে ৭৫% নম্বর থাকতে হবে।

দ্বিতীয়ত, এক্সট্রা কারিকুলাম অ্যাক্টিভিটিস। অর্থাৎ কোনো সামাজিক, সাংস্কৃতিক, অর্থনৈতিক, একাডেমিকসহ বিভিন্ন জাতীয়-আন্তর্জাতিক সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত থাকা, অর্থাৎ এ ক্ষেত্রে সম্পৃক্ততা গুরুত্বপূর্ণ। এ ছাড়া বিভিন্ন জাতীয়-আন্তর্জাতিক সিম্পোজিয়াম-সেমিনারে ওয়ার্কশপ বা অংশগ্রহণ করে থাকলে তা আবেদনের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।

আবেদন করতে যা লাগবে :

* পাসপোর্ট/জাতীয় আইডি কার্ড/জন্ম নিবন্ধন সনদের (ইংরেজিতে অনুবাদ করা) স্ক্যান কপি।

* সাম্প্রতিক তোলা পাসপোর্ট সাইজের ছবি।

* সকল একাডেমিক সার্টিফিকেট।

* সকল একাডেমিক মার্কশিট।

* অনার্স এর জন্য লেটার অফ ইনটেণ্ট। মাস্টার্স ও পিএইচডির এর জন্য একটি রিসার্চ প্রপোজাল।

* দুটি বা তিনটি রেফারেন্স লেটার। এ ক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক এবং যারা এই মুহূর্তে চাকরি করছেন তারা ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার কাছ থেকে একটি হলে ভালো হয়।

* এক্সট্রা কারিকুলার অ্যাক্টিভিটিসের সব সার্টিফিকেট।

* পাবলিকেশন থাকলে উল্লেখ করা।

ওপরের সব ডকুমেন্ট স্ক্যান কপি করে রেডি রাখতে হবে

বৃত্তির আবেদন করার সময় বিশ্ববিদ্যালয় এবং সাবজেক্ট বাছাই করতে হয়। এ ক্ষেত্রে যাদের রেজাল্ট ভালো এবং ওপরে উল্লেখিত সব যোগ্যতা রয়েছে, তারা তুরস্কের ভালো বিশ্ববিদ্যালয়গুলো চয়েজ করতে পারেন। আর যারা যোগ্যতার দিক থেকে একটু দুর্বল, তারা র‍্যাঙ্কিংয়ের নিচের দিকের বিশ্ববিদ্যালয় গুলো বাছাই করে দিলে বৃত্তি পাওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে।

তুরস্কের প্রথম সারির কিছু বিশ্ববিদ্যালয়

তুরস্কের সব বিশ্ববিদ্যালয়ই মানসম্মত। তবে এর মধ্যে কয়েকটি সেরা বিশ্ববিদ্যালয় হচ্ছে:

# মিডল ইস্ট টেকনিক্যাল ইউনিভার্সিটি, আঙ্কারা।

# বোয়াজিসি ইউনিভার্সিটি, ইস্তাম্বুল।

# ইস্তাম্বুল টেকনিক্যাল ইউনিভার্সিটি, ইস্তাম্বুল।

# আঙ্কারা ইউনিভার্সিটি, আঙ্কারা।

# ইস্তাম্বুল ইউনিভার্সিটি।

# হাজেতেপে ইউনিভার্সিটি, আঙ্কারা।

# এগে ইউনিভার্সিটি, ইজমির।

# ডকুজ এইলুল ইউনিভার্সিটি, ইজমির।

উল্লেখ্য, আবেদনের জন্য কোনো ফি লাগে না। পুরো আবেদন প্রক্রিয়াই হয় বিনা মূল্যে। এছাড়া এই লিংকে প্রবেশের মাধ্যমে আবেদন করা যাবে।

অফিসিয়াল ওয়েবসাইটঃ https://www.turkiyeburslari.gov.tr/news/turkiye-scholarships-2022-applications-19