ভূমিহীন ও গৃহহীন মুক্ত হচ্ছে বগুড়ার দুপচাঁচিয়া উপজেলা


Bogra | Published: 2022-07-15 16:57:15 BdST | Updated: 2022-10-05 18:30:47 BdST

আগামী ২১ জুলাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আশ্রয়ণ প্রকল্প ২ এর আওতায় আরো ২৬২৫৯ টি পরিবারের মধ্যে জমি ও ঘর বরাদ্দ প্রদান করবেন। এই ঘর গুলো এ প্রকল্পের তৃতীয় পর্যায়ের দ্বিতীয় ধাপে নির্মিত। এবারের অনুষ্ঠানে থাকছে একটি বিশেষ চমক। সেটি হলো বাংলাদেশের ৫২ টি উপজেলাকে ভূমিহীন ও গৃহহীন মুক্ত ঘোষণা করার বিষয়টি। 'মুজিববর্ষে একজন মানুষও গৃহহীন থাকবে না এমন প্রতিশ্রুতি দিয়েই মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এই প্রকল্পের কাজ হাতে নিয়েছিলেন।'

তারই ধারাবাহিকতায় ইতিপূর্বে প্রায় আড়াই লাখের বেশি ঘর দেয়া হয়েছে। এবারে সময় এসেছে হালনাগাদ তালিকার ভিত্তিতে শতভাগ ভূমিহীন উপজেলা ও জেলাকে খুজে বের করার। তথ্য অনুযায়ী ৫২ টি উপজেলা ও ২ টি জেলাকে হালনাগাদ তালিকার ভিত্তিতে ২১ জুলাই তারিখে শতভাগ ভূমিহীন ও গৃহহীন মুক্ত ঘোষণা করা যায়। তবে ঝড়, জলোচ্ছ্বাস বা অন্য যে কোন কারণে নতুন ভূমিহীন তালিকা পাওয়া গেলে তাৎক্ষণিক তাদের পুনর্বাসন করার ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

বগুড়ার দুপচাঁচিয়া উপজেলা ২১ জুলাই ভূমিহীন ও গৃহহীন মুক্ত ঘোষিত হতে যাচ্ছে। এ নিয়ে উপজেলার জনপ্রতিনিধি, সাধারণ জনগণ, কর্মকর্তা-কর্মচারী, গনমাধ্যম কর্মী, বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে ব্যপক উৎসাহ ও উদ্দিপনা বিরাজ করছে। ঘর নির্মানের কাজ প্রায় শেষ, অডিটরিয়াম সেজে উঠছে। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের রিহার্সাল চলছে, নামজারি ও কবুলিয়তের কাজও শেষ।

এ যেন এক আনন্দের ধুম। দুপচাঁচিয়া উপজেলার উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুমন জিহাদীর সাথে কথা বললে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, "দুপচাঁচিয়াতে ইতিমধ্যে ৩১৯ টি পরিবারকে জমি ও ঘর দেয়া হয়েছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আগামী ২১ জুলাই তারিখে দুপচাঁচিয়া তে আরো দশটি ঘর হস্তান্তর করবেন এবং এ সাথে আপাতত দুপচাঁচিয়া ভূমিহীন ও গৃহহীন মুক্ত বলে ঘোষিত হবে।

এর অভিব্যক্তি সরূপ উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব ফজলুল হক বলেন, 'এটি আমাদের জন্য গর্বের যে আমরা সেটি করে দেখাতে পেরেছি। '

উপজেলা আওয়ামীলীগ এর সভাপতি আমিনুর রহমান বলেন, বর্তমান সরকার গরীব ও অসহায়ের জন্য কাজ করছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী তাদের আত্মার আত্মীয় মনে করেন। আমরা উপজেলা, ইউনিয়ন ও সমগ্র স্থানীয় সরকার এর সাথে জড়িত থাকতে পেরে গর্বিত। গরীব দুঃখি ও উপকার ভোগীদের সাথে আলাপ করলে তারাও সন্তোষ প্রকাশ করেছেন।

উল্লেখ্য, দুপচাঁচিয়া উপজেলা ও নন্দীগ্রাম উপজেলার কাজ সরাসরি জেলা প্রশাসন থেকে তদারকি করা হচ্ছে। গত ৬ জুলাই তারিখে রাজশাহী বিভাগের বিভাগীয় কমিশনার জনাব জাফরুল্লাহ এনডিসি দুপচাঁচিয়া ও নন্দীগ্রাম পরিদর্শন করে স্থানীয় সুশীল সমাজের সাথে মতবিনিময় করেন। এ সময় অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার আবু তাহের মোহাম্মদ মাসুদ রানা ও বগুড়ার জেলা প্রশাসক জনাব জিয়াউল হকও উপস্থিত ছিলেন।