ঢাবির সিএসই বিভাগের নতুন চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. আব্দুর রাজ্জাক


DU Correspondent | Published: 2024-02-20 21:39:47 BdST | Updated: 2024-04-22 05:40:14 BdST

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং (সিএসই) বিভাগের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেছেন অধ্যাপক ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক।

মঙ্গলবার (২০ ফেব্রুয়ারি) বিভাগের সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক সাইফুদ্দিন মো. তারিকের কাছ থেকে আগামী ৩ বছরের জন্য তিনি দায়িত্ব গ্রহণ করেন। এ সময় বিভাগের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা তাকে ফুল দিয়ে অভ্যর্থনা জানান।

এর আগে ঢাবি সিএসই বিভাগের অধ্যাপক থাকাকালীন বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি ও আচার্যের অনুমোদনক্রমে গ্রিন ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের উপ-উপাচার্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন কম্পিউটার বিজ্ঞানের এই অধ্যাপক।

শিক্ষাজীবনে ড. আব্দুর রাজ্জাক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফলিত পদার্থবিদ্যা ও ইলেক্ট্রনিক্স বিভাগে অনার্স সম্পন্ন করে কম্পিউটার সায়েন্সে মাস্টার্স ডিগ্রি অর্জন করেন। পরে তিনি ইসলামিক ইউনিভার্সিটি অব টেকনোলজিতে (আইইউটি) প্রভাষক হিসেবে যোগ দেন। বর্তমানে তিনি কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল বিভাগের গ্রিন নেটওয়ার্কিং রিচার্স গ্রুপের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক হিসেবে কাজ করছেন।

২০০৪ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে প্রভাষক হিসেবে যোগদান করেন ড. মো. রাজ্জাক। পরবর্তীতে ২০০৯ সালে দক্ষিণ কোরিয়ার কিয়ং হি ইউনিভার্সিটিতে পিএইচডি করেন। সেখানেই ২০০৯-২০১১ পর্যন্ত রিচার্স প্রফেসর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন তিনি।

২০১৭ সালে যুক্তরাষ্ট্রের স্টেটফোর্ড ইউনিভার্সিটির কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইনফরমেশন সিস্টেম বিভাগে ভিজিটিং প্রফেসর হিসেবে অধ্যাপনা করেন ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক। দেশ ও দেশের বাইরের খ্যাতিমান জার্নালে ১৮০টি গবেষণা প্রবন্ধ রয়েছে তার। আইইইই কম্পিউটার সোসাইটি বাংলাদেশ চ্যাপ্টারের চেয়ার হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি।

নতুন দায়িত্ব গ্রহণের পর অধ্যাপক ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক বলেন, বর্তমান যুগ কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশলের। তাছাড়া দেশের উচ্চশিক্ষায় বিজ্ঞান, প্রকৌশল ও প্রযুক্তির ক্রমেই বাড়ছে। স্বভাবতই এই বিভাগের প্রতি বিশ্ববিদ্যালয় পরিবার, বৃহৎ অর্থে বলতে গেলে গোটা জাতির এক ধরনের চাওয়া থাকে। আগামী তিন বছর যথাসাধ্য সেটি পূরণ করার চেষ্টা করব।

তিনি বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সিএসই বিভাগ ইতোমধ্যেই বিভিন্ন ক্ষেত্রে শ্রেষ্ঠত্ব প্রমাণ করেছে। সকলের সহযোগিতায় শিক্ষা ও গবেষণার মান উন্নয়ন এবং শিক্ষার্থীদের সফট স্কিল বৃদ্ধিতে বিশেষ মনোনিবেশ এবং বর্তমান সফলতা ধারা উত্তরোত্তর এগিয়ে নিতে সর্বাত্মক চেষ্টা করব।