বাকৃবিতে নবীনদের বরণ করে নিলো হাওর ও চর উন্নয়ন ইনস্টিটিউট


Likhan Islam | Published: 2024-02-25 18:57:44 BdST | Updated: 2024-04-22 05:21:16 BdST

বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে (বাকৃবি) অবস্থিত হাওর ও চর উন্নয়ন ইনস্টিটিউটে নবীনবরণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। এম.এস ইন ওয়েটল্যান্ড এগ্রিকালচার প্রোগ্রামে ভর্তিকৃত ছাত্র-ছাত্রীদের নবীনবরণ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে প্রথমবারের মতো ইনস্টিটিউটটিতে ক্লাস শুরু হচ্ছে।

রবিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) বিকেল সাড়ে ৪ টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনস্টিটিউশনাল কোয়ালিটি এ্যাসুরেন্স সেলের সভা কক্ষে ওই নবীনবরণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

জানা যায়, প্রথমবার ইনস্টিটিউটটিতে বিভিন্ন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এম.এস ইন ওয়েটল্যান্ড এগ্রিকালচার প্রোগ্রামে মোট ১৩ জন শিক্ষার্থী ভর্তি হয়েছে। এই ইনস্টিটিউটে বর্তমানে একজন পরিচালক, একজন সহযোগী পরিচালক এবং ৪ জন প্রভাষক রয়েছে। এছাড়াও শিক্ষার্থীদের নিয়মিত ক্লাসের জন্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের অভিজ্ঞ শিক্ষকবৃন্দ ক্লাস নিবেন।

হাওর ও চর উন্নয়ন ইনস্টিটিউটের পরিচালক অধ্যাপক ড. সুবাস চন্দ্র দাসের সভাপতিত্বে এবং সহযোগী পরিচালক অধ্যাপক ড. মো. হারুন অর রশীদের সঞ্চালনায় ওরিয়েন্টেশন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অধ্যাপক ড. মো. আবু হাদী নূর আলী খান। সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাকৃবির ছাত্রবিষয়ক উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. মো. হারুন-অর রশিদ। এছাড়াও কৃষি সম্প্রসারণ শিক্ষা বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. হাম্মাদুর রহমান, কীটতত্ত্ব বিভাগের অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ মহির উদ্দীন, কৃষি শক্তি ও যন্ত্র বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ড. আনিসুর রহমান এবং কৃষি অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক ড. হুমায়ূন কবিরসহ ওই ইনস্টিটিউটের শিক্ষকবৃন্দ ও নবীন শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে অধ্যাপক ড. মো. আবু হাদী নূর আলী খান বলেন, দেশের হাওর জুড়ে রয়েছে বিশাল কৃষিসম্পদ। এই কৃষিসম্পদের সঠিক মূল্যায়ন প্রয়োজন। তোমরা নিজেদের ওয়েটল্যান্ড এগ্রিকালচার শিক্ষায় দক্ষ হিসেবে গড়ে তুলে হাওরের উন্নয়নে ভূমিকা রাখবে। তাই প্রথম থেকেই পাঠ্য বিষয়ে তোমাদের মনোযোগী হতে হবে। তোমাদের মাধ্যমেই পরবর্তীতে এই ইনস্টিটিউটের সুনাম বৃদ্ধি পাবে।

উল্লেখ্য, বাকৃবির সাবেক শিক্ষার্থী এবং প্রয়াত সাংবাদিক ড. নিয়াজ পাশা ২০১৩ সালে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের কাছে হাওর ও চর উন্নয়ন ইনস্টিটিউট স্থাপনের বিষয়ে একটি প্রস্তাব দেন। রাষ্ট্রপতি বিষয়টি আমলে নিয়ে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় (বাকৃবি) ক্যাম্পাসে ২০১৮ সালের ২২ জুলাই ইনস্টিটিউটটির উদ্বোধন করেন।