ডিআইইউতে যৌন হয়রানি ও রেজাল্ট বিক্রির বিরুদ্ধে কথা বলায় ১০ শিক্ষার্থী বহিষ্কার!


Desk report | Published: 2024-03-22 22:50:52 BdST | Updated: 2024-05-24 22:29:43 BdST

ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে (ডিআইইউ) সাংবাদিক সমিতির কার্যক্রম বন্ধের নির্দেশ এবং সাংবাদিকতা পেশায় যুক্ত ১০ শিক্ষার্থীকে বহিষ্কারের ঘটনায় তীব্র সমালোচনার জন্ম দিয়েছে। এ ঘটনায় নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে দেশের প্রায় অর্ধশত সাংবাদিক, রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও চলছে নানা আলোচনা।

বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বলছে, বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম ব্যবহার করে কিছু শিক্ষার্থী সাংবাদিক সমিতি নামে একটি সমিতি চালাচ্ছেন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে যার কোনো স্বীকৃতি নেই।

বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের অভিযোগ, উক্ত সাংবাদিক সমিতি ইউনিভার্সিটির অনুমতি না নিয়ে ক্যাম্পাসে শ্রেণিকক্ষ ব্যবহার করে গত ৯ মার্চ একটি সাধারণ সভার আয়োজন করে। এ ছাড়া, ১০ মার্চ ২০২৪-২৫ সালের কার্যনির্বাহী কমিটি গঠন করে, যা বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়মবহির্ভূত।

তবে শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, অভ্যন্তরীণ অনিয়ম, দুর্নীতি ও শিক্ষার্থী হয়রানির মতো জনগুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে সংগঠনের সদস্যরা বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রকাশের কারণেই তারা বহিষ্কৃত হয়েছেন। এর আগেও বেশ কয়েকবার ডিআইইউ’র সাংবাদিকদের সংগঠন “সাংবাদিক সমিতি” বন্ধের পাঁয়তারা করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেন তারা।

শিক্ষার্থীরা বলছেন, প্রায় এক মাস আগে তারা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের আর্থিক অনিয়ম নিয়ে গণমাধ্যমে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেন। প্রতিবেদনটি প্রকাশিত হওয়ার পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তোড়পাড় সৃষ্টি হয়। শিক্ষার্থীদের কেউ মুখ খুললেই আপমান, বহিষ্কার আর পরীক্ষায় দেখে নেবার হুমকি দেওয়া হয়৷

তারা আরও বলছেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক কর্তৃক ছাত্রীকে যৌন হয়রানির বিষয়ে প্রকাশ পায় সম্প্রতি একটি গণমাধ্যম প্রতিবেদনে। এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়টিতে টাকা দিয়ে রেজাল্ট বিক্রি করারও বেশকিছু তথ্য প্রমাণ সম্প্রতি সামাজিক মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। শিক্ষার্থীরা বলছেন, মূলত ছাত্রীকে যৌন হয়রানি এবং টাকা দিয়ে রেজাল্ট বিক্রির বিরুদ্ধে সোচ্চার হওয়ার কারণেই ১০ জন শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

বহিষ্কৃত শিক্ষার্থীরা অভিযোগ করছেন, তাদের কাউকে কোনো কারণ দর্শানোর নোটিশও দেওয়া হয়নি। সাংবাদিকদের কলম ও কণ্ঠরোধ করার উদ্দেশ্যেই ডিআইইউ’র এমন বহিষ্কারাদেশ বলে মন্তব্য করছেন তারা। তারা বলছেন, আমাদের বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ নেই, কোনো তদন্ত কমিটি নেই এমনকি কোনো শোকজও নেই। বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞপ্তিতে সরাসরি আমাদের বহিষ্কারের ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। অভিযোগ ছাড়া এভাবে বহিষ্কার কোনো নিয়মের মধ্যে পড়ে না বলে অভিযোগ করেন তারা।

বহিষ্কৃত শিক্ষার্থীরা আরও অভিযোগ করেন, গত চার বছর ধরে তারা ক্যাম্পাসে সাংবাদিকতা কার্যক্রম চালিয়ে আসছে। ক্যাম্পাসের বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতি গণমাধ্যমে তুলে ধরেছেন তারা। যার ফলে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সাংবাদিকদের বহিষ্কারের মতো এমন গর্হিত সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

এবিষয়ে ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির প্রক্টর অধ্যাপক ড. সাজ্জাদ হোসেনকে একাধিকবার ফোন করলেও তিনি ফোন রিসিভ করেন নি।

এদিকে, সাংবাদিকতা পেশায় যুক্ত ১০ শিক্ষার্থীকে বহিষ্কারের ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নসহ (ডিইউজে) প্রায় অর্ধশত সাংবাদিক, রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠন। শর্তহীনভাবে এসব শিক্ষার্থীর বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহার করা না হলে দেশব্যাপী কঠোর আন্দোলনের হুঁশিয়ারি দিয়েছেন ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের নেতারা৷