ভালো বন্ধুর যেসব গুণ


Dhaka | Published: 2024-02-15 02:10:11 BdST | Updated: 2024-04-22 06:14:18 BdST

আমরা সবাই ভালো বন্ধু চাই। কিন্তু কখনো কি ভেবে দেখেছি নিজে ভালো বন্ধু হয়ে উঠতে পেরেছি কি না? 'কোনো ভালো বন্ধু নেই' বলে আফসোস করতে কিন্তু অনেককেই শোনা যায়। তবে ভালো বন্ধু পাওয়ার আশা তখনই করা যায়, যখন নিজেকেও ভালো বন্ধুতে পরিণত করতে পারবেন। 

বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গেছে, জীবনে একজন ভালো বন্ধুর উপস্থিতি মনের চাপ কমায়, আত্মবিশ্বাস বাড়ায়, কঠিন সময়ে সাহায্য করে এবং অস্বাস্থ্যকর জীবনধারা এড়ানো সহজ করে তোলে। শক্তিশালী বন্ধু নেটওয়ার্ক প্রাপ্তবয়স্কদের মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যা কাটিয়ে উঠতেও সহায়তা করে।

আজকের আলোচনায় থাকছে কীভাবে আপনি ভালো বন্ধু হয়ে উঠতে পারেন।

বন্ধুর কাছে বিশ্বাসযোগ্য হয়ে উঠুন

কারো ভালো বন্ধু হতে চাইলে অবশ্যই তার আস্থা ও বিশ্বাস রাখা জরুরি। বন্ধু অনেক সময় আবেগের বসে অনেক গোপন কথা আপনাকে বলে মনের কষ্ট লাঘবের চেষ্টা করতে পারে। কিন্তু আপনি যদি কথায় কথায় অন্যকে কথাগুলো বলে ফেলেন, তবে বিশ্বাসযোগ্যতা হারাবেন। তাছাড়া বন্ধুর কাছে কোনো প্রতিজ্ঞা করলে সেটি রক্ষা করার চেষ্টা করুন। ভালো আচরণ ও সততা দিয়ে বন্ধুর আস্থা অর্জন করুন।

যদি বন্ধুকে কখনো কথা দিয়ে থাকেন তা রাখার সর্বোচ্চ চেষ্টা করুন। যদি সেটি কোনো কারণে না পারেন তবে সময় আসার আগেই কারণ ব্যাখ্যা করে ক্ষমা চেয়ে নিন।

প্রয়োজনে পাশে থাকুন

অনেক সময় দেখা যায় সুসময়ে মানুষের অনেক বন্ধু থাকে, কিন্তু খারাপ সময় তাদের ছায়াও দেখা যায় না। শুধু বসন্তের কোকিল না হয়ে দুঃখের সময় সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেওয়া উচিত। যদি বন্ধুর বিপদে অর্থ দিয়ে সহায়তা করার সম্ভব নাও হয়, তার পাশে বসে তার কথা শুনুন, সাহস দিন। এতে বন্ধুটি বিপদে হারানো আত্মবিশ্বাস ফিরে পেতে পারে।

অনুপ্রেরণা দিন সবসময়

আত্মবিশ্বাস ধরে রাখার জন্য অনুপ্রেরণার কোনো বিকল্প নেই। খারাপ পরীক্ষার ফল, বিচ্ছেদ কিংবা কঠিন বিপদে বন্ধু যখন অনেক হতাশ হয়ে পরে তাকে অনুপ্রেরণা দিন। তাকে জানিয়ে দিন আপনার উপস্থিতি। বুঝিয়ে দিন যে তিনি একা নন, আপনি তার পাশে আছেন সবসময়। বন্ধুকে সবসময় ইতিবাচক কথা বলুন, তার দুঃখ-কষ্ট মনোযোগ দিয়ে শোনার চেষ্টা করতে হবে।

ব্যক্তিগত বিষয়ে হস্তক্ষেপ করা থেকে বিরত থাকুন

যত ভাল বন্ধুই হন না কেন, সবারই ব্যক্তিগত জীবন রয়েছে। সেখানে একটা সীমারেখা আছে। তাই বন্ধু না চাইলে তার ব্যক্তিগত বিষয়ে হস্তক্ষেপ করা থেকে বিরত থাকুন। তার ব্যক্তিগত বিষয়গুলো শোনার জন্য জোর করবেন না।

অনেক সময় বন্ধুর সিদ্ধান্তে জোর করে নিজের মতামত চাপিয়ে দেয়ার চেষ্টা করেন অনেকে কিংবা ব্যক্তিগত জীবনে ঢুকে অনধিকার চর্চা করেন। মনে রাখবেন, ভালো বন্ধু হিসেবে কিংবা শুভাকাঙ্ক্ষী হিসেবে আপনি বড়জোর তাকে পরামর্শ দিতে পারেন।

বন্ধুকে সম্মান দিন

সম্মান পেতে হলে আগে সম্মান দিতে হয়, এটা আমাদের সবার জানা। বন্ধুকে সম্মান করতে শিখুন। এতে আপনার প্রতি আস্থা, বিশ্বাস, ভরসা বাড়বে। বন্ধুর সামনে বন্ধুর গুণগান করলেন কিন্তু পিছনে তাকে নিয়ে হাসাহাসি করলেন, তবে আপনি কখনোই ভালো বন্ধু হয়ে উঠতে পারবেন না।

এ ছাড়া, অনেক ক্ষেত্রে ঠাট্টাচ্ছলে আমরা এমন কথা বলে ফেলি যা বন্ধুর আত্মসম্মানে লাগতে পারে। তার অস্বস্তির কারণ হবেন না।

নিয়মিত যোগাযোগ রাখার চেষ্টা করুন

বন্ধুর সঙ্গে ঘুরতে, চায়ের কাপ হাতে জম্পেস আড্ডায় মেতে উঠতে কার না মন চায়! কিন্তু ব্যস্ত জীবনে সবসময় হয়তো বন্ধুর সঙ্গে দেখা করা, কথা বলা সম্ভব হয় না। তারপরও যতটুকু সম্ভব সময় বের করার চেষ্টা করুন প্রিয় বন্ধুটির জন্য।