পপি গাইডের লেখক থেকে যেভাবে সংসদ সদস্য হলেন আব্দুল মজিদ


কুমিল্লা | Published: 2024-01-09 10:07:27 BdST | Updated: 2024-04-22 05:20:34 BdST

নব্বই দশকে বাংলা চলচ্চিত্র প্রদর্শনের বিজ্ঞাপন বিরতিতে দেখা যেত পপি লাইব্রেরির পপি গাইডের বিজ্ঞাপন। নব্বই দশকের কিশোর তরুণদের কাছে পপি গাইড খুবই পরিচিত। সেই পপি গাইডের লেখক আব্দুল মজিদ দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে রীতিমতো হইচই ফেলে দিয়েছেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফলিত গণিতে স্নাতকোত্তরের পর কুমিল্লার মুরাদনগরে একটি কলেজে প্রভাষক হিসেবে যোগ দিয়েছিলেন। এরপর দীর্ঘ বৈচিত্র্যময় পথ পাড়ি দিয়ে আজ তিনি সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন।

অধ্যাপক আব্দুল মজিদ এক সাক্ষাৎকারে বলেছিলেন, ১৯৯৫ সালে কলেজে শিক্ষতার অবসরে তিনি গাইড বই (সহায়ক বই) লেখা শুরু করেন। এই গাইড বই বাজারে বেশ সাড়া ফেলে। হাতে আসে। টাকা। এই টাকা দিয়ে তিনি কুমিল্লার মুরাদনগরের রামচন্দ্রপুরে গড়ে তোলেন কলেজ। একদম নিজস্ব অর্থায়নে। ১৯৯৭ সালে এই কলেজ থেকে এইচএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে সাতজন মেধাতালিকায় স্থান পায়। 

আব্দুল মজিদ যে স্বপ্ন দেখেছিলেন তা বাস্তবে রূপ নেয়। এরপর করেছেন একাধিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। প্রাথমিক বিদ্যালয়, হাইস্কুল ও নিজের স্ত্রীর নামে রেহানা মজিদ কলেজ করেন। ২০১৮ সালে কুমিল্লার হোমনায় নিজের নামে অধ্যাপক আব্দুল মজিদ মডেল স্কুল ও কলেজ গড়ে তোলেন। 

ইতোমধ্যে হোমনায় একটি হাসপাতাল করেছেন। এখন একটি মেডিকেল কলেজ গড়ে তোলার স্বপ্ন তার। 

এরইমধ্যে দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে মনোনয়নপত্র কেনেন। মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাইয়ে হলফ নামায় স্বাক্ষর না থাকায় তাঁর মনোনয়নপত্রটি বাতিল করেন রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক মু. মুশফিকুর রহমান। পরে নিয়মানুযায়ী নির্বাচন কমিশনে আপিল করেন অধ্যক্ষ আবদুল মজিদ। পরে রাজধানীর আগারগাঁও নির্বাচন ভবনে আপিলের শুনানি শেষে তার মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করা হয়।

আব্দুল মজিদ বলেছিলেন, ‘হোমনা-মেঘনায় আমি দীর্ঘ দিন দলের জন্য কাজ করেছি। এখানকার মানুষ আমাকে অনেক ভালোবাসে। জনগণের অনুরোধে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছি। এখন জনগণের ভোটে এমপি নির্বাচিত হয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আসনটি উপহার দেব, ইনশা আল্লাহ।’

কুমিল্লা-২ (হোমনা ও মেঘনা) আসনে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হোমনা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অধ্যক্ষ আবদুল মজিদ ট্রাক প্রতীক নিয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তিনি বর্তমান সংসদ সদস্য বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী সেলিমা আহমাদকে ১ হাজার ৯৬১ ভোটের ব্যবধানে পরাজিত করে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন। হোমনা ও মেঘনা উপজেলায় মোট ৯৪ টি কেন্দ্রের প্রাপ্ত ভোটের ফলাফল অনুযায়ী ট্রাক প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী অধ্যক্ষ আবদুল মজিদ পেয়েছেন ৪৪ হাজার ৪১৪ ভোট এবং তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী নৌকা প্রতীকের প্রার্থী সেলিমা আহমাদ পেয়েছেন ৪২ হাজার ৪৫৩ ভোট।

এখন আব্দুল মজিদের গল্পটা সবার জানা। তাকে নিয়ে সামাজিক মাধ্যমেও চলছে বিস্তর লেখালেখি। বলছেন, আব্দুল মজিদ একজন শিক্ষানুরাগী। জীবনের সময়টা ব্যয় করেছেন মানুষকে শিক্ষিত করে গড়ে তোলার পেছনে। এখন তিনি সংসদে যাচ্ছেন, নিশ্চয়ই শিক্ষা নিয়ে তিনি বড় কোনো কাজ করবেন।

এসবের পাশাপাশি আব্দুল মজিদের পপি লাইব্রেরিটি কিন্তু এখনো আছে। সেই লাইব্রেরির পেইজ থেকেও প্রতিষ্ঠা আব্দুল মজিদকে শুভেচ্ছাও জানানো হয়েছে।